মাত্র ৩৭৫ টাকায় মনের খোরাকী

238

3086

মাত্র ৩৭৫ টাকায় মনের খোরাকী

  • 0
  • #Featured #অন্যান্য
  • Author: Rokomari Editor
  • Share

একদা প্রমথ চৌধুরী বলেছিলেন- বই পড়া শখটা মানুষের সর্বশ্রেষ্ঠ শখ হলেও আমি কাউকে শখ হিসেবে বই পড়তে পরামর্শ দিতে চাইনে। প্রথমত, সে পরামর্শ কেউ গ্রাহ্য করবেন না; কেননা, আমরা জাত হিসেবে শৌখিন নই। দ্বিতীয়ত, অনেকে তা কুপরামর্শ মনে করবেন; কেননা, আমাদের এখন ঠিক শখ করবার সময় নয়।  কারন অনেকে মনে করেন তার কোনো নগদ বাজার দর নেই।

 

হয়তো এটা কোন এক আক্ষেপ থেকে বলেছিলেন, কারন বই পড়ার প্রতি আমাদের অনীহার কারনেই তিনি বলেছিলেন। যদিও তিনি তার প্রচুর লেখায় লাইব্রেরীকে হাসপাতালের মতই অনিবার্য হিসেবে মনে করেন। কারন দেহের সুস্থতার জন্য হাসপাতালের প্রয়োজন আর মনের সুস্থতার জন্য দরকার লাইব্রেরি। আর লাইব্রেরীর মূল উপাদান হলো বই, আর একটি ভালো বই বাড়িয়ে মনের পরিধি। তাই আসুন জেনে নিই অমর একুশে বইমেলা শুরুর আগে কিভাবে মাত্র ৩৭৫ টাকা খরচ করে বাড়িয়ে নিবেন মানসিক উচ্ছলতা আর জানার পরিধি।

 

বইগুলো পরিচয় করিয়ে দেয়ার আগে আসুন পরিচয় করিয়ে দুইজন মানুষের সাথে, যাদের একজকে আপনি চিনেন এবং আরেকজনকে চিনবেন তার লেখা  পড়তে পড়তে।

 

একজন, আয়মান সাদিক, যিনি ১০ মিনিট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা
এবং আরেকজন, ক‍্যান্সার ও স্টেম সেলের  তিনি পিএইচডি করছেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ‍্যালয়ে, তার নাম শামীর মোন্তাজিদ।
অমর একুশে বইমেলা উপলক্ষ্যে প্রকাশিত হয়েছে তাদের ২ জনের লেখা বই, আয়মান সাদিকের বইটির নাম “ভাল্লাগে না ‘  এবং শামীর মোন্তাজিদের লেখা বইটির নাম “হাইজেনবার্গের গল্প

 

তারা দুজনেই অনলাইন শিক্ষক হিসেবে ভীষন জনপ্রিয় এবং প্রতিনিয়ত তারা আলো জ্বালিয়েই যাচ্ছেন, এই দুটি বই যে আপনার মনের খোরাক যোগাবে তাতে কোন সন্দেহ নেই

 

কি আছে বইগুলোতেঃ

 

হাইজেনবার্গের গল্প নিয়ে শামীর মোন্তাজিদ

 

হাইজেনবার্গের গল্প বইটি লেখার পটভূমি নিয়ে বইটির লেখক শামীর মোন্তাজিদ বলেন-  বিজ্ঞান তো কেবল যারা সায়েন্স বিভাগে পড়ে তাদের পৈতৃক সম্পত্তি নয়। আমার ল‍্যাবের বিজ্ঞানটা সবার। এর আবিষ্কারের আনন্দটাও তাই সবাই সমানভাবে উদযাপন করবে। অক্সফোর্ডের বন্ধু আনিসুল করিম সবসময় আমার গল্প বলার ক্ষমতার ভূয়সী প্রশংসা করে থাকে। তাই, শেষ মেষ ঠিক করে ফেললাম যে, একটা বিজ্ঞান বিষয়ক গল্পের বই লিখবো যা বিজ্ঞানের ছাত্র না হয়েও সবাই পড়তে পারবে। এই বইটির নাম আমি প্রথম দিতে চেয়েছিলাম “হাইজেনবার্গের প্রলাপ”। ১০ মিনিট স্কুলের কেমিস্ট্রি শিক্ষক হিসেবে আমার ছাত্ররা হাইজেনবার্গ নামটা বেশ পছন্দ করেছিলো। ওয়ার্নার হাইজেনবার্গ সাহেব আমার সবচেয়ে পছন্দের বিজ্ঞানী। তাই বিজ্ঞানবিষয়ক কিছু করার সময় হাইজেনবার্গ নামটাই আমি বেশী ব‍্যবহার করি। এই বইয়ের সবগুলো আর্টিকেলকে গল্প বলা যাবে না। কিছু কিছু অংশ আমার মতামত কলুষিত প্রবন্ধ। কয়েকটি অংশে রয়েছে কিছু মজার সায়েন্স এক্সপেরিমেন্ট, কয়েকজন বিজ্ঞানীর জীবনকাহিনী; তবে বেশীর ভাগই সত‍্যিকার ঘটনা যা আমার মতো বিজ্ঞানপাগল মানুষেরা পড়ে প্রতিনিয়ত রোমাঞ্চিত হয়। তাই গল্প-প্রবন্ধ-উপন‍্যাস কোন ক‍্যাটাগরীতে বইটা যাবে তা আমি নির্ধারণ করতে পুরোপুরি ব‍্যর্থ হয়েছি। আমি সাহিত‍্যিক নই, বিজ্ঞানী। সাহিত‍্যের ব‍্যাকরণ বিচারে হয়তো এই বইটা ডাস্টবিনের নিচের দিকে অবস্থান লাভ করবে। তবে আমার লেখা গল্পগুলো যদি এক-দুইটা স্কুল পড়ুয়া বাচ্চাকে বিজ্ঞানের প্রতি আকৃষ্ট করতে পারে তাহলে আমার এই বই লেখার উদ্দেশ‍্য সার্থক হবে।
এই বইটা আমি বিশ্বের বেশ কিছু শহরের কফিশপে বসে লিখেছি। ঢাকার নর্থ এন্ড, অক্সফোর্ডের কস্তা কফি, এডিনবরার এলিফেন্ট হাউস, মক্কার স্টার বাকস, থিম্পুর কফি কালচার, অ‍্যামস্টারডামের ভাস্কোবেলোতে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে শুধুমাত্র এককাপ কফি খেয়ে ফ্রি ওয়াইফাই কাজে লাগিয়ে এই বইয়ের অধিকাংশ গল্প লেখা হয়েছে। এই প্রতিটি কফিশপের প্রতি তাই আমার গভীর কৃতজ্ঞতা। আরো কৃতজ্ঞতা আমার বন্ধু শুভ, স্বর্ণা, শামস, আয়মান, অমিতা, ইফতি, বাঁধন, অভিষেক আর ওমরের প্রতি যারা প্রতিনিয়ত আমার জীবনটা উপভোগের সঙ্গী হয়েছে। হাইজেনবার্গের গল্পের এখানেই শেষ নয়। বিশ্বের প্রতিটা কোণার কফিশপে বসে আরো গল্প লিখবো। সেগুলো প্রকাশিত হবে আগামী বছরগুলোতে। আশা করি বিজ্ঞানের জগতে আপনার পরিভ্রমণ সুখকর হোক।

বইটির রকমারি লিঙ্কঃ দেখুন হাইজেনবার্গের গল্প (লিঙ্কঃ https://bit.ly/2sNs8eq )

হাইজেনবার্গের গল্প বইয়ের প্রচ্ছদ

আয়মান সাদিকের বই ” ভাল্লাগে না

 

ভাল্লাগে না বইটি কাদের জন্যঃ

 

শত অজুহাতে জর্জরিত আমাদের জীবন। দিনশেষে আমাদের অজুহাতে আমরা নিজেরাই পরাহত। আপাতদৃষ্টিতে অজুহাত আমাদের পরাজয়ের গ্লানি থেকে রক্ষা করে ক্ষণিকের স্বস্তি এনে দিলেও শেষ পর্যন্ত এই অজুহাতের কবলে পরেই আমাদের জীবনের অনেক আশা আকাঙ্খা মারা যায়। আর এই শত অজুহাতের রাজা অজুহাত হলো “ভাল্লাগে না” আর সেটা তাড়াবার জন্য বদ্ধপরিকর এই বইয়ের লেখক আয়মান সাদিক এবং অন্তিক মাহমুদ।

প্রতিদিন আমাদের পেয়ে বসা অজুহাতগুলোকে নির্মূল করতে অভূতপূর্ব কিছু আইডিয়ার সংকলন হলো এই আজব বইটি। বইটিতে কার্টুনকর্মের দায়িত্বে রয়েছে অন্তিক মাহমুদ আর লেখনীর নেতৃত্বে রয়েছে আয়মান সাদিক। আশা করি, জীবনের বহুপ্রান্তে অসংখ্য ভাল্লাগেনার মাঝে এই বইটি আপনাদের ভালো লেগে যাবে। 

আর ভালো না লাগলে মূল্য ফেরতের ব্যবস্থা না থাকায় আয়মান সাদিক এবং অন্তিক মাহমুদের পরবর্তী ভিডিওর কমেন্টে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে প্রতিশোধ নেয়ার অনুরোধ করা হলো।

বইটি অনলাইনের অর্ডার করতে রকমারি ডট কম এর লিঙ্কঃ ভাল্লাগে না  লিঙ্কঃ https://bit.ly/2HwJxlW )

 

ভাল্লাগে না বইয়ের প্রচ্ছদ

 

বই দুটি একসাথে অর্ডার করতে ভিজিট করুনঃ ৩৭৫ টাকায় মনের খোরাক  (লিঙ্কঃ https://bit.ly/2sN5FOL

 

 

 

 

 

 

Write a Comment

Related Stories