কেন রিভিউ এবং রেটিং গুরুত্বপুর্ণ?

0
755

বইকে শুধুমাত্র পড়া ও জ্ঞান আহরণের বিষয় হিসেবে বিবেচনা না করে বইকে আলোচনা ও সমালোচনার মাধ্যমে উপভোগ্য ও বিশেষায়িত বিষয় হিসেবে উপস্থাপন করাই রিভিউ এর উদ্দেশ্য থাকে। সময়ের সাথে সাথে পাঠ প্রতিক্রিয়া প্রকাশের  মাধ্যম গুলোও পরিবর্তিত হয়েছে। আগে শুধু আড্ডায় কিংবা পেপার পত্রিকার মাধ্যমে কিংবা কাগজে লিখে মানুষ তার মতামত প্রকাশ করতো, কিন্তু বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া, ব্লগ ও ই-কমার্সের কল্যানে বই নিয়ে মতামত প্রকাশের পরিসরও বেড়েছে।

শুরুতেই প্রশ্ন আসা টাই স্বাভাবিক একটি কোম্পানি কিংবা সার্ভিস কিংবা পণ্যের ক্ষেত্রে কেন এতো বেশী গুরুত্বপুর্ণ হয়ে ওঠছে, বিশেষ করে বইয়ের ক্ষেত্রে।  সেই বিষয়টাতেই আমি আলোকপাত করার চেষ্টা করবো।

গত সপ্তাহে পাঠানো মেইলে আমি রকমারি ডট কম এর একটি ছোট পরিসংখ্যান আপনাদের সাথে শেয়ার করেছিলাম, যেখানে বলেছিলাম  যে বইয়ের রিভিউ এবং রেটিং বেশী সেই বইয়ের বিক্রির হার রিভিউবিহীন বইয়ের চেয়ে ৫০% বেশী। যে বইয়ের মিনিমাম ১০ টি রিভিউ আছে সেই বইয়ের বিক্রির হার অন্য বইয়ের তুলনায় বেশী সেই সাথে টপ সেলার তালিকায় আসার সম্ভাবনা বেশী।

আবার ফোর্বস থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে অনলাইনে কেনাকাটা করতে আসা গ্রাহকদের মধ্যে ৬১% গ্রাহক অনলাইনে থাকা পণ্যের রিভিউ দেখে পণ্যটি কেনার জন্য মনস্থির করেন।

কিছু পরিসংখ্যানঃ

  • Reevo এর দেয়া তথ্যানুসারে কোন পণ্যে ৫০ এর উপর রিভিউ থাকার মানে হচ্ছে ঐ পণ্যের সেলস কনভার্সন হওয়ার সম্ভাবনা অন্য পণ্যের তুলনায় ৪.৬% বেশী
  • অনলাইনে যারা ক্রেতা তাদের মধ্যে ৮৮% মনে করেন কোন পণ্যের রিভিউ একধরনের পার্সোনাল রিকমেন্ডশনের মত কাজ করে। সেই রিভিউ এর নির্ভর করে তারা পণ্য ক্রয়ের জন্য মনস্থির করেন।
  • ৮৯% ইউজার একটা রিভিউ পড়ার ১ সপ্তাহের মধ্যে সেই পন্য ক্রয়ের জন্য মনস্থির করেন

(source: Reach Local)

প্রাপ্ত তথ্যানুসারে দেখা যাচ্ছে অনলাইনে কেনাকাটার ক্ষেত্রে পণ্যের রিভিউ ক্রমেই গুরুত্বপুর্ণ হয়ে ওঠছে।

এক নজরে দেখে নিন রকমারি ডট কম এর বেস্টসেলার সবগুলো বই এখানে

LEAVE A REPLY