সঠিক পরিশ্রমে ৪-৬ মাসেই ফ্রীল্যান্সিং ক্যারিয়ার সম্ভব ওয়েব ডিজাইনে।

0

223

সঠিক পরিশ্রমে ৪-৬ মাসেই ফ্রীল্যান্সিং ক্যারিয়ার সম্ভব ওয়েব ডিজাইনে।

  • 3
  • #যন্তর-মন্তর
  • Author: রকমারি ব্লগ
  • Share

ইন্টারনেট থেকে আয় নিয়ে অনেকেই শুনেছি। কিন্তু সঠিকভাবে শক্ত করে কখনো চেস্টা করি নাই । ১ মাস ২ মাস ট্রাই করলেও করি করি করেও গভীরভাবে চেস্টা করা হয়ে ওঠে নি। অনেকে তো আবার বছর ধরে ভেবেই চলেছেন কোনটা শিখবেন কিভাবে শিখবেন? নতুনদের জন্য এ যেন এক গোলক ধাঁধা।। এর মধ্যে, আমরা মানুষ হিসেবে অনেকটাই হুজুগে টাইপের, এই জন্য এর কথা ওর কথা শুনে হয়ত সাহস করেও কোনদিন অনলাইনে আয়ের দিকে ফিরেও দেখি নাই বা এটাকে ভন্ডামি ভেবে উড়িয়েই দিয়েছি।

তবে জেনে রাখুন যে, ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেক্টরে আপনি যদি প্রতিদিন নিয়মিত কয়েক ঘন্টা মনোযোগ দিয়ে সময় দিতে পারেন তাহলে মাত্র ৪-৬ মাসের মধ্যেই আপনার নিজের উপার্জিত অর্থ চোখে দেখতে পারবেন!!! এটা কোন হুজুগ নয়, বরং বাস্তব।

 প্রথমেই সতর্কতা- এটি কোন ১ বছরে কোটিপতি হয়ে যাওয়ার প্ল্যান নয়, এটা সম্পূর্ণ বৈধ এবং পরিশ্রম করে সফলতা অর্জনের একটি দিক নির্দেশনা। কাজেই কেউ যদি ভেবে থাকেন, কাজ না করে বসে বসে কোটিপতি হবেন, তাহলে আমি দুঃখিত যে এটি আপনার জন্য নয়।

 যাই হোক, কাজের কথায় ফিরে আসা যাক,

হ্যা, আমি জানি অনেকের কাছে আবার মনে হচ্ছে ৪ থেকে ৬ মাস!!! ওরে বাপরে,,, এত্তো সময়!!!

ভাই থামেন, একটা চাকরীর জন্য ১৫-২০ বছর পড়াশুনা করতে পারেন, এই অফিসে সেই অফিসে বছরের পর বছর সিভি জমা দিয়ে যেতে পারেন, আর যখন মাত্র ৬ মাস পরিশ্রমের কথা বলা হয় তখন আমাদের কেন জানি মনে হয় ৬ মাস বুঝি ৬ শতাব্দীর মত লম্বা সময়।

আপনি বিশ্বাস করুন আর নাই করুন, চেষ্টা করলে মাত্র ৪-৬ মাসেই ইন্টারনেট থেকে প্রথম উপার্জন সম্ভব এবং যত দিন যাবে এর সাথে লেগে থাকলে আয়ের মাত্রা আরো বাড়তে থাকবে।

তবে কিভাবে হবে এটা?

সত্যি বলতে গেলে, ইন্টারনেটের সব কাজ শিখে ৬ মাসে সফল হওয়া সম্ভব নয়। তবে কিছু কাজ আছে যেগুলো শিখে দ্রুত সফলতা অর্জন করা যায়।

এমন একটি সেকশন হচ্ছে- ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট

এটা আসলে কি?

এক কথায় এটা হচ্ছে ওয়েবসাইট তৈরির কাজ। বিভিন্ন কোম্পানী তাদের অনলাইন পরিচিতির জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করে থাকে, আর সেই ওয়েবসাইট গুলো তৈরিতেই রয়েছে এক বিশাল কর্মসুযোগ।

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট-ই শিখবো কেন?

বর্তমানে অনলাইনে যে সকল কাজ গুলো পাওয়া যায় তার মধ্যে অন্যতম হট ট্রেন্ড হচ্ছে এটি। মার্কেটে ওয়েব ডেভেলপারের চাহিদা রয়েছে প্রচুর। শুধুমাত্র ইন্টারন্যাশনাল মার্কেট ই নয়, আমাদের দেশীয় মার্কেটেও এখন ওয়েব ডেভেলপারের বেশ ভাল চাহিদা, এছাড়াও এটা শিখে চাকরীর পাশাপাশি ব্যবসাও করার সুযোগ রয়েছে! দিন দিন এর কর্ম ক্ষেত্র বেড়েই চলেছে

 এছাড়াও এই সেক্টর কতটা বিশাল তা নিয়ে Yahoo এর করা একটি রিপোর্ট পেশ করা হলো-

  • শুধুমাত্র আমেরিকাতেই ২০.১+ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের মার্কেট রয়েছে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এ।
  • প্রতি মাসে পৃথিবীতে ১৬ মিলিয়নের বেশি ওয়েবসাইট তৈরি করা হচ্ছে।
  • প্রায় ৭০ শতাংশ ওয়েবসাইট-ই প্রিমিয়াম হয় অর্থাৎ, কাউকে না কাউকে টাকা দিয়ে করানো হয়ে থাকে।

এবার চিন্তা করুন, এই মার্কেটে আপনি কেন নিজেকে নিয়োগ করবেন না??? এখনই সুযোগ, যত দিন যাবে প্রতিযোগীতা আরো বাড়বে…  তাই এখন থেকেই নিজেকে প্রস্তুত করুন…।

এটা শিখে কিভাবে অনলাইন থেকে আয় করা যাবে?

কাজটি শেখার পরে, আপনি চাইলে ফ্রীল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে ওয়েব ডিজাইনের কাজ গুলো অনায়াসেই করতে পারেন, এছাড়াও চাইলে আমাদের দেশীয় অনেক কোম্পানীর আন্ডারে কাজ করতে পারেন।তবে সবচাইতে মজার ব্যাপার হচ্ছে, কাজ জানা থাকলে আপনি চাইলে সম্পূর্ণ নিজের ওয়েব ডেভেলপিং ফার্ম ও খুলতে পারেন, এতে করে আপনি নিজেই হবেন নিজের বস! বিভিন্ন কোম্পানী থেকে অর্ডার সংগ্রহ করে নিজেই রান করতে পারেন নিজের কোম্পানী!

কিন্তু মাত্র ৪-৬ মাসে কি সত্যিই সম্ভব??

হ্যা, এটা সত্যিই সম্ভব, তবে প্রতিদিন কয়েক ঘন্টা করে নিয়মিত পরিশ্রম করতে হবে। আমি বলছি না যে, ৬ মাসের মধ্যে আপনি লাখপতি হয়ে যাবেন। আমি শুধু এটা বলছি যে, যদি সত্যি সত্যি পরিশ্রম করতে পারেন তাহলে ৪-৬ মাসের মধ্যেই ইন্টারনেট থেকে প্রথম উপার্জন করতে পারবেন এবং ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারলে আরো ভাল পরিমাণ আয় করা যাবে।

আচ্ছা কি পরিমাণ আয় করা যাবে?

এটা সম্পূর্ণই আপনার কাজের মান এবং সময়ের উপর নির্ভরশীল। তবে, ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটে কাজের মিনিমাম রেট হচ্ছে, প্রতি ঘন্টায় ৩ ডলার। কাজেই যদি দিনে ৫ ঘণ্টা কাজ করেন তাহলে ১ দিনে ১৫ ডলার যা এক মাসে ৪৫০ ডলার বা প্রায় ৩৫ হাজার বাংলাদেশী টাকা। তবে এটা কিন্তু সর্বনিম্ন রেট, যত বেশি নিজেকে আপডেট করতে পারবেন, যত দক্ষতার লেভেল বাড়াতে পারবেন, আপনার ইনকামও ততই বাড়বে।

তবে হ্যা, এর জন্য কিন্তু প্রয়োজন সঠিক গাইডলাইন!!!

যে কোন কিছুতেই সফলতার জন্য গাইডলাইনের বিকল্প নেই। গাইডলাইন ছাড়া কোন কাজেই সফলতা পাওয়া অত সহজ নয়, প্রোপার গাইডলাইনই পারে আপনাকে দ্রুত সফলতার দিকে নিয়ে যেতে।

 এবার যদি বলেন, এই গাইডলাইন পাবেন কোথায়???

বেস্ট সল্যুশন- ওয়েব গুরু বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল

BUY NOW

এটি হচ্ছে ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট এর উপর কিভাবে শূন্য থেকে শুরু করে কাজ শিখে কাজ করার লেভেলে যাওয়া যায় তার বিস্তারিত প্র্যাক্টিক্যাল গাইডলাইন ভিডিও কোর্স। এখানে প্রায় ৩৫ ঘণ্টা বাংলা লেসনের মাধ্যমে ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট শেখানো হয়েছে এবং কাজ শেখার পর কিভাবে কোথায় কাজ করবেন তার গাইডলাইন দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ৩ মাসের মধ্যে কিভাবে ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট কমপ্লিট করে কাজের উপযোগী হবেন

“ওয়েব গুরু- রকমারি.কম বেস্ট সেলার – ‘আইটি বাড়ি’ কোয়ালিটি!!”

( এখানে রয়েছে- ৪ টি ডিভিডি, ২৭৫টিরও বেশী বাংলা HD ভিডিও লেসন, ৩৫ ঘণ্টা+ মোট দৈর্ঘ্য )

অর্ডার করুন ৩৫ ঘণ্টা+ পুরো কোর্স মাত্র ৯৯০ টাকায়!

বুঝলাম, তাহলে আপনাদের এই কোর্স এ কি কি থাকবে?

ওয়েব ডিজাইন + ডেভেলপমেন্ট এবং অনলাইনে আয়ের উপর যা যা থাকছেঃ

  1. HTML 4 + HTML 5
  2. CSS 3
  3. JavaScript, jQuery- (usage only)
  4. PSD to HTML
  5. Responsive Web Design
  6. Basic PHP
  7. WordPress Theme Development – (From Scratch to Final Full Dynamic Theme)
  8. কাজ শেখার পরে কিভাবে-কোথায় কাজ করবেন তার উপর গাইডলাইন
  9. আলাদা আলাদাভাবে শেখার পরে থাকছে পূর্ণাঙ্গ প্রোজেক্ট তৈরির প্র্যাক্টিক্যাল ভিডিও!

একদম শূন্য থেকে প্রতিটা বিষয় হাতে ধরে স্পষ্টভাবে ভেঙ্গে ভেঙ্গে সামনাসামনি লাইভ কোডিং লিখে ফুল ডাইনামিক ওয়েবসাইট তৈরি করেই দেখানো হয়েছে

এছাড়াও স্পেশাল বোনাস হিসেবে থাকছে, কিভাবে ফ্রীল্যান্সিং মার্কেটে অ্যাকাউন্ট করবেন, টাকা তুলবেন তার প্র্যাক্টিক্যাল ভিডিও। বোনাস ভিডিও গুলো ডিভিডি তে দেয়া সিক্রেট গ্রুপে পাওয়া যাবে।

শেখার পরে কিভাবে কাজ করে আয় করবেন?

এই কোর্সটিকে এমনভাবে সাজানো হয়েছে যেটি দেখে আপনি অনলাইনে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস, নিজস্ব ফার্ম বা লোকাল কোন অফিসেও ওয়েব ডিজাইনার বা ডেভেলপার হিসেবে কাজ করতে পারবেন। এই সম্পর্কিত বিস্তারিত গাইডলাইন ডিভিডি এর সাথেই দেয়া থাকবে। এতে করে কাজ শেখার পরে কোথায় কাজ করবেন সেটা নিয়ে বিপাকে পরতে হবে না। শুধুমাত্র এই কোর্সের সাথেই থাকছে এটা শেখার পরে কিভাবে আয় করবেন তার উপর পূর্ণাঙ্গ স্পেশাল গাইডলাইন ই-বুক এবং ভিডিও গাইড, যার ফলে শুধুমাত্র কাজ শেখাই নয় বরং কাজ শেখার পরে ইন্টারনেট থেকে আয়ের জন্যও দিক-নির্দেশনা পাবেন

কিনলেই কি শেষ! তারপর সাপোর্ট কিভাবে পাব?

যারা আমাদের এই টিউটোরিয়াল ডিভিডি গুলো সংগ্রহ করবেন তাদেরকে দেয়া হবে আলাদা একটি ইমেইল অ্যাড্রেস, যেখানে আপনি কাজ শিখতে গিয়ে কোন জায়গায় সমস্যা হলে সেখানে মেইল করবেন। সেই ইমেইলে শুধুমাত্র আমাদের নিজস্ব স্টুডেন্টদেরই হেল্প করা হয়। শুধু তাই নয়, এই কোর্স যারা কিনবেন তাদের জন্য থাকবে ফেসবুক সিক্রেট দলের এর ব্যবস্থা এবং সেখানে শুধুমাত্র এই কোর্সের স্টুডেন্টরাই হেল্প পাবেন 🙂 – সিক্রেট গ্রুপের জন্য এই কোর্সটি কেনার পরে অ্যাডমিনকে ইমেইল করে জানাতে হবে।

এই ফুল কোর্সে রয়েছে ২৭৫টি+ HD বাংলা ভিডিও লেসন যার মোট ডিউরেশন ৩৫ ঘণ্টা+ 

এই ৩৫ ঘণ্টা কিন্তু একদম সরাসরি লেসন। অনেক প্রাতিষ্ঠানিক ক্লাসে দেখা যায় ৪ ভাগের ৩ ভাগ সময়ই গল্প, প্র্যাক্টিস ইত্যাদি করতে করতে চলে যায়, কিন্তু এখানে এই ৩৫ ঘণ্টাই কিন্তু সরাসরি লেসন, তাই সে হিসেবে এটাই যদি কোন একাডেমিক কোর্স হত তাহলে প্রায় ১২০ ঘণ্টা+ সমমানের কোর্স হত এটি।

ভিডিও কোর্সটির মূল্যঃ

এই Web Design and Development ফুল বাংলা ভিডিও কোর্স এর লিস্ট প্রাইস- ১৫০০ টাকা

পাচ্ছেন ৩৪% এর বিশেষ ডিসকাউন্ট

বিশেষভাবে এই পোস্টের রিডারদের জন্য কোর্সটি পুরো ৫১০ টাকা ডিসকাউন্টে পাবেন মাত্র- ৯৯০ টাকায়! এই সুযোগ শুধুমাত্র সীমিত সময়ের জন্য –এখনই অর্ডার করুন

এত সস্তা! কতটুকু শিখতে পারব?

হ্যা, এই কোর্সের মার্কেট ভেল্যু মিনিমাম ৪০ হাজার টাকা। কারন প্রফেশনাল কোর্সে যা যা শেখানো হয়, আমরা যেহেতু নিজেরাই প্রফেশনাল কাজ করি তাই আমারাও একইভাবে নিজেদের অভিজ্ঞতার আলোকেই এই ভিডিও গুলো তৈরি করেছি।

 থামেন ভাই, কিনতে হবে না! কেন কিনবেন? কোয়ালিটি যাচাই করেছেন কি?

তাইতো! তো বাজারের আর পাচটা খুচরা কোম্পানীর মত নয়। আইটি-বাড়ি, কোয়ালিটিতে বিশ্বাস করে। ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স কেনার আগে ১ বা ২ টি নয়, পুরো ২০টি ভিডিও লেসন সরাসরি দেখে সিওর হয়ে নিন এটি দেখে আপনি সত্যিই শিখতে পারবেন কিনা? আমরা গ্যারান্টি দিচ্ছি, আপনি যদি বাংলা ভাষা বোঝেন তাহলে আমাদের টিউটোরিয়াল গুলোও বুঝবেন। সত্যতা যাচাই করতে নিচ থেকে পার্ট বাই পার্ট ২০টি ভিডিও দেখুনঃ**

সিরিয়ালি পুরো ২০ টি ভিডিও ডেমো দেখে নিন।

এবং আমরা জানি আমাদের কয়েক’শ সফল ছাত্রদের মত আপনিও বুঝে গেছেন আমাদের কোয়ালিটি সম্পর্কে! অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করুন।

কিন্তু এত কোয়ালিটি থাকার পরেও এর মূল্য এত কম রাখা হচ্ছে কেন?

ভিডিও ডেমো দেখার পরে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে অনেকেই এই প্রশ্ন করেছেন। এমনকি অনেক স্টুডেন্ট তো এই ডিভিডি এর মূল্য আরো কয়েক গুন বাড়ানোর কথাও বলেছেন 🙂 কিন্তু এর পরেও এই কোর্সটি এত কম দামে দেয়ার কারন হচ্ছে আমরা চাই দেশের ডেভেলপমেন্ট। কারন আমি মনে করি, আমাদের দেশে যে পরিমাণ জনশক্তি আছে তাদেরকে সবচাইতে সহজে পুরো বিশ্বের সামনে জনশক্তি হিসেবে তুলে ধরার ক্ষেত্রে কম্পিউটারের বিকল্প আর কিছুই হতে পারে না।

আমাদের প্রধান মোটিভ ই হচ্ছে “লাল সবুজের দেশ হবে বেকারমুক্ত কম্পিউটার স্বাক্ষর”

এবার প্রশ্ন  করতে পারেন, তাহলে ফ্রীতে কেন দিচ্ছি না? ফ্রীতে দিচ্ছি না কারন, আমরা ফ্রী জিনিস মূল্যায়ন করতে জানি না। ফ্রীতে আমাদের স্বর্ণের খনি দিলেও আমরা সেটাকে নিয়ে হেলা করতে দ্বিধা করি না। আর এই জন্যই আমরা এমন একটা প্রাইস ঠিক করেছি যেটা মোটামুটি স্টুডেন্ট লেভেল থেকে কর্মজীবী যে কেউ বহন করতে পারবে। এছাড়াও, আমরা ” আইটি বাড়ি ” কারো ডোনেশন নিয়ে প্রতিষ্ঠান চালাতে চাই না। আমরা নিজেদের যোগ্যতা নিয়েই উপরে উঠেছি এবং সামনেও উঠব ইনশাআল্লাহ্‌।

আমাদের কাছ থেকেই কেন শিখতে হবে? বাজারে কি কোর্সের অভাব আছে?

এই প্রশ্ন যদি আপনার মনে নাও আসে তবুও জেনে নিন, কেন আপনি আমাদের কাছ থেকে এই কোর্সটি সংগ্রহ করবেন:

  • কোন আজাইড়া বক বক নয়, সরাসরি ৩৫ ঘণ্টারও বেশী লেসন।
  •   রিয়েল প্রোফেশনালদের দ্বারাই তৈরি, বাস্তব অভিজ্ঞতার আলোকে।
  •  কোন গদবাধা সিলেবাস নয়, কাজ করতে যা যা লাগবে তাই দেখানো হয়েছে,
  •   বার বার আপডেট এবং স্টুডেন্টদের প্রশ্নের উত্তর যোগ করার ফলে এটি হয়েছে আরো অনেক বেশী তথ্যবহুল
  •  প্রাতিষ্ঠানিক ক্লাসের মত কোন নির্দিষ্ট সময়ে নয়, বরং ডিভিডি কিনে আপনার নিজ সময়ে, নিজ গতিতে, প্রয়োজনে বার বার ভিডিও দেখার মাধ্যমে ফুল কোর্স কমপ্লিট করতে পারব।
  •  প্রতিটি পার্ট কিভাবে হয়েছে, কেন হয়েছে এইভাবে ভেঙ্গে ভেঙ্গে বুঝানো হয়েছে।
  •  হেল্প এর জন্য আমরা তো আছি-ই, থাকছে ফেসবুক সিক্রেট  স্টুডেন্ট কমিউনিটি।
  •    ভার্সিটি ভর্তি কোচিং  এর সহযোগী বই বিক্রির প্রতিষ্ঠান রকমারি.কমে আমরা বেস্ট সেলার অথোর।
  •  একমাত্র আমাদেরই রয়েছে পুরো ৭০ হাজার+ বাংলাদেশী মেম্বারযুক্ত ফেসবুক গ্রউপ।
  •  ইউটিউবে দেয়া আমাদের অল্প কয়েকটি ডেমো ভিডিওর মোট ভিউ ১৫ লক্ষেরও বেশী!
  •    সবচাইতে বড় কথা- এটি একটি আইটি বাড়ি কোয়ালিটি” টিউটোরিয়াল

এই কোর্সগুলো কাদের জন্য নয়?

আমরা চাই না নিচের চিন্তাভাবনা যুক্ত কেউ আমাদের এই টিউটোরিয়াল গুলো সংগ্রহ করুক-

  • যারা শেখার চাইতে বেশি বা শেখার আগেই আয় করতে চায়।
  •    যারা মনে করে কাজ না করে শুধু ডিভিডি দেখলেই পকেটে টাকা আসতে থাকবে।
  •   যারা মনে করে এটি ক্লিক করলেই টাকা পাওয়ার মত কোন সিক্রেট ফর্মু।
  •    মিনিমাম ২-৩ মাস পরিশ্রম করার মত সময় আর ধৈর্য্য যার ন।
  •   যাদের মধ্যে নিজের জন্য কিছু করার মত সাহস নেই।
  •  যারা অকারনে হাজার হাজার টাকা নষ্ট করতে পারে কিন্তু কোন কিছু শেখার জন্য ফ্রীতে বা সস্তায় খোজে।

কারন, আমরা চাই শুধুমাত্র সিরিয়াস আগ্রহী লোকেরাই আমাদের এই টিউটোরিয়াল কোর্সগুলো সংগ্রহ করুক। আমাদের টার্গেট হাজার জন ব্যর্থ ছাত্র তৈরি নয় বরং কয়েকজন সফল ছাত্র তৈরি করা। আর এতেই আমাদের সফলতা। এবার সিদ্ধান্ত আপনার, আপনি আপনার জীবনে সত্যিই কিছু করবেন, নাকি শুধু স্বপ্নই দেখতে থাকবেন,

মনে রাখুন, সফলতার প্রথম ধাপ হচ্ছে রিস্ক নেয়া, একজন ব্যর্থ আর সফল ব্যক্তির মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে, সফল ব্যক্তি কোন কিছু জানার পরে সাথে সাথেই অ্যাকশন নেয়, আর ব্যর্থরা শুধু দেখেই যায় কিন্তু সেই অনুযায়ী কোন স্টেপ নিতে পারে না, ফলে জীবনে হতাশায় ডুবে থাকে।তাই আজকে, কালকে বা পরশু নয়, বরং এখন এই মুহূর্ত থেকেই যদি শুরু না করতে পারেন, তাহলে আর কোনদিনই শুরু হবে না, কাজেই আবারো ভেবে দেখুন… সফলদের কাতারে যাবেন? নাকি জীবনে শুধু সন্দেহ আর হতাশা নিয়েই থাকবেন … .??

এটাই হতে পারে আপনার জীবনের সেরা সিদ্ধান্ত 🙂

ফুল কোর্স ডিভিডি অর্ডার করতে ”

এখানে ক্লিক করুন

ব্লগটি লিখেছেন আইটি বাড়ি এর প্রতিষ্ঠাতা আবদুল কাদের। আবদুল কাদের এর সবগুলো টিউটোরিয়াল দেখতে ক্লিক করুন।

Write a Comment