মুহম্মদ জাফর ইকবাল এর বই ও ৬ টি মজার ঘটনা

0
1013
মুহম্মদ জাফর ইকবাল কে বাংলাদেশের মানুষের কাছে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেয়ার মত আসলে কিছুই নেই।  একজন লেখক, পদার্থবিদ ও শিক্ষাবিদ হিসেবে সবাই তাকে চিনে। তার প্রকাশিত যে কোন বই পড়ার অপেক্ষায় থাকে অনেক কিশোর, যুবক। অনেকের বর্ণিল কৈশোরের স্বপ্নদ্রষ্টা মুহম্মদ জাফর ইকবাল। আসুন এক ঝলকে দেখে নেই তার ৬ টি মজার ঘটনা এবং তার লেখা বইয়ের নামঃ
১) ছেলেবেলার একটা মজার ঘটনা

মনে হচ্ছে এটা আগে কখনো বলে ফেলেছি৷ তবুও আবার বলি৷ আমরা তখন কুমিল্লা থাকি – এক একুশে ফেব্রুয়ারিতে ঠিক করা হলো প্রভাতফেরি করে শহীদ মিনারে গিয়ে ফুল দেওয়া হবে৷ সমস্যা হচ্ছে এত ভোরে কেউ ঘুম থেকে উঠতে পারবে না৷ তাই পাশের বাড়ির কয়েকজন বাচ্চা দায়িত্ব নিল যে, তারা সকালে এসে ঘুম থেকে তুলবে৷ দোতলা বাসা, আমরা দোতলায় থাকি৷ আমি বাচ্চাদের বললাম, পায়ে দড়ি বেঁধে জানালা দিয়ে ঝুলিয়ে দেব৷ তোমরা দড়ি ধরে টানতেই ঘুম ভেঙে যাবে৷

ঘুমানোর সময় জানালায় একটা বালিশ রেখে সেটার সঙ্গে দড়ি বেঁধে দড়ি ঝুলিয়ে দিলাম! যথাসময়ে শেষ রাতে পাশের বাড়ির বাচ্চারা আমাকে ঘুম থেকে তুলতে এসেছে৷ অন্ধকারে হাতড়ে হাতড়ে দড়ি বের করে যেই দড়ি ধরে টান দিয়েছে, দোতলার জানালা থেকে বালিশ এসে পড়েছে তাদের মাথায়৷ ভয়ে আতঙ্কে তাদের দাঁত কপাটি লাগার অবস্থা৷ তাদের ধারণা বেশি জোরে টান দিয়ে তারা জানালা দিয়ে টেনে আমাকেই নিচে ফেলে দিয়েছে!

শুরু হলো মুহম্মদ জাফর ইকবাল বইমেলা – ২০১৭। ২১ ডিসেম্বর থেকে ২৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৯৯০+ টাকার অর্ডার করলেই পাচ্ছেন একটি কমিকস বই একদম ফ্রি!! তবে অর্ডারে অন্তত একটি জাফর ইকবাল স্যারের বই কিন্তু থাকতেই হবে। 
 এছাড়া ২৫% ছাড়ে কিনুন লেখক মুহাম্মদ জাফর ইকবালের সকল বই দেখতে লিঙ্কে ক্লিক করুন
২) আমেরিকার একটা মজার ঘটনা

গাড়ি করে যাচ্ছি, হঠাত্‍ করে দেখি রাস্তায় পানি জমেছে বলে পুলিশ রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে৷ সেই দেশে রাস্তা বন্ধ করলে পুলিশেরা সাধারণত কোন পথে যেতে হবে সেটা বলে দেয়, রাস্তাঘাটে সিগনাল থাকে৷ আজ সেরকম কিছু নেই৷ আমি কী করব বুঝতে না পেরে একটা গলিতে ঢুকে পড়লাম৷ গলিতে খানিকদূর গিয়ে ডানদিকে একটা রাস্তা পেয়ে সেটায় ঢুকে পড়লাম, সেটা দিয়ে খানিকদূর গিয়ে গেলাম বাম দিকে, লাভ হলো না বলে একটা মোড় ঘুরে আরো একটা রাস্তা নিলাম, কিছুদূর গিয়ে দেখি একেবারে অন্ধ গলি, রাস্তা সেখানেই শেষ৷ ডান-বাম সামনে-পেছনে কোথাও যাওয়ার রাস্তা নেই৷ কী করব বুঝতে না পেরে গাড়ি থেকে নেমে আমার চক্ষু চড়কগাছ৷ কোনদিকে যেতে হবে আমি জানি মনে করে আমার পিছু পিছু শ খানেক গাড়ি চলে এসেছে৷ পেছনে যতদূর দেখা যায় শুধু গাড়ি আর গাড়ি, বড় ছোট মাঝারি বাস-ট্রাক নিয়ে আমরা সেই অন্ধ গলিতে আটকা পড়ে গেছি!
নেহায়েত ভদ্রলোকের দেশ তাই সেদিন আমার পিটুনি খেতে হয়নি৷

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী : সেরিনা (রকমারি বেস্টসেলার # ১১)
এনিম্যান
বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী : ক্রেনিয়াল
তিতুনি এবং তিতুনি
বিজ্ঞানী সফদর আলীর মহা মহা আবিষ্কার

৩) স্কুলজীবনের একটা মজার ঘটনা

এই গল্পটাও মনে হয় কোথাও বলে ফেলেছি! যাই হোক আবার বলা যাক – স্কুলের এক স্যার মোটামুটি পাষণ্ড প্রকৃতির৷ দরিদ্র শিক্ষক, একদিন তার কিছু টাকার দরকার হলো৷ আমাকে বললেন মাকে বলে তাকে সেই টাকা এনে দিতে পারব কি না৷ আমি এবং আমার বোন এক ক্লাসে পড়ি৷ বাসায় এসে আমার মাকে বললাম, মা টাকা দিলেন৷ কাজেই সেই পাষণ্ড স্যারকে আমি এবং আমার বোন ঋণের জালে আবদ্ধ করে ফেললাম৷ আমরা দুই ভাইবোন তখন ক্লাস ফোরে পড়ি৷ কিন্তু সেই বয়সেই ঝানু মহাজনের মতো স্যারকে ব্ল্যাকমেইল করা শুরু করলাম৷ যেদিনই পড়া শেখা হতো না স্যারের হাতে মার খাবার সম্ভাবনা থাকত, ক্লাসের শুরুতে স্যারের কাছে গিয়ে গলা নামিয়ে ফিসফিস করে বলতাম, স্যার, আমার মা আজকে বিশেষ করে বলেছেন টাকাটা ফেরত দিতে৷
স্যার ফ্যাকাশে হয়ে যেতেন৷ কখনোই টাকা ফেরত দিতে পারতেন না, আমতা আমতা করে কৈফিয়ত দিতেন এবং অবধারিতভাবে আমাদের পড়া জিজ্ঞেস করতেন না, বরং সেই ক্লাসে আমাদের সঙ্গে মধুর ব্যবহার করতেন৷ স্যারের অবস্থা আরো খারাপ হয়ে গেল যখন একটা স্বপ্ন দেখার অর্থসংক্রান্ত বই চেয়ে সেই বইটা হারিয়ে ফেললেন৷ আমরা বই এবং টাকা দুটি বিষয় নিয়েই তাকে ব্ল্যাকমেইলিং করে গেলাম৷

মুহম্মদ জাফর ইকবালের বেস্টসেলার সব সায়েন্স ফিকশন দেখুন (দেখতে লিঙ্কে ক্লিক করুন)

৪) দাম্পত্য জীবনের একটা মজার ঘটনা

বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকাকালীন আমি হাত দেখতাম৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ছাত্রীরই হাত তখন দেখেছি৷ একজন আমাদের ক্লাসে পড়ে, নাম ইয়াসমীন হক৷ হাত দেখে বললাম, তোমার কোনো চিন্তা নেই, খুব বড়লোকের সঙ্গে তোমার বিয়ে হবে৷ সেই ইয়াসমীন হক আমেরিকাতে আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করতে এসেছে৷ আমার টাকার টানাটানি, তার থেকে কিছু টাকাও ধার করেছি৷ হঠাত্‍ করে মাথায় একদিন বুদ্ধি খেলে গেল, বিয়ে করলে নিশ্চয়ই আর ধারের টাকা ফেরত চাইবে না! কাজেই একদিন বিয়ে হয়ে গেল৷
বিয়ের প্রথম রাতে সাধারণত স্বামী-স্ত্রীতে অনেক মধুর বাক্যবিনিময় হয়৷ আমার সঙ্গে ইয়াসমীন হকের নিম্নরূপ বাক্যবিনিময় হয়েছিল :

ইয়াসমীন : কী মহাশয়? হাত দেখে বলেছিলেন বড়লোকের সঙ্গে বিয়ে হবে! এই হচ্ছে বড়লোকের নমুনা? আমার টাকা ধার করে আমাকে বিয়ে?

আমি : মানে ইয়ে-বলছিলাম কী, বড়লোক মানেই কি আর টাকা-পয়সার বড়লোক? হৃদয় দিয়েও বড়লোক হয়! (এটি এক বিন্দু বানানো নয় পুরোপুরি সত্যি ঘটনা!)

৫) লেখালেখি নিয়ে একটা মজার ঘটনা

একজন অনেক দূর থেকে আমার সঙ্গে দেখা করতে এসেছে৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাস্তায় আমার সামনে দাঁড়িয়ে বলল, আমি শুনেছি আপনি এখানে এসেছেন৷ সেটা শুনে সেই কতদূর থেকে আমি আপনার সঙ্গে দেখা করতে এসেছি৷ এ রকম পরিবেশে মুখে যে রকম বিনয় ফোটানোর কথা আমি সে রকম বিনয় ফুটিয়ে ধরে আছি৷ ভদ্রলোক বললেন, আমি কী আপনার হাতটা একবার ছুঁয়ে দেখতে পারি? আমি হাত বাড়িয়ে বললাম, নিন৷
ভদ্রলোক আমার হাতটা টেনে নিজের বুকে চেপে ধরে আবেগ বিহ্বলিত হয়ে বলল, ইশ! আমার এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না হুমায়ূন আহমেদের আপন ভাইয়ের হাতটা আমি ধরতে পেরেছি!

মুহম্মদ জাফর ইকবালের বেস্টসেলার সব সায়েন্স ফিকশন একসাথে এখানে

৬) সন্তান-স্ত্রীকে নিয়ে একটা মজার ঘটনা

আমার স্ত্রী-পরিবারের কাছে কথা দিয়েছি, কখনোই আমাদের ব্যক্তিগত কথা পত্রপত্রিকায় বলব না – এবার কিছু বলে ফেলেছি৷ যদি সেজন্য আমি বিপদে পড়ি আপনারা উদ্ধার করবেন৷

শেষ গল্পটা এ রকম – আমার ছেলে ছোট, মাত্র কথা শিখেছে৷ তাকে আদব-কায়দা শেখাচ্ছি৷ তাকে বললাম, যখন তোমাকে কেউ ডাকবে তখন ভদ্রতা করে বলবে, জ্বি৷ ছেলে মুখ গম্ভীর করে শুনল৷ কয়দিন পরে আমি তাকে ডেকেছি, সে শব্দটা ভুলে গেছে৷ আবছা আবছা তার মনে আছে, শব্দটা একটা ইংরেজি অক্ষর, তাই উত্তর দিল, এইচ!

মুহম্মদ জাফর ইকবাল বইমেলা উপলক্ষ্যে তার সকল বইয়ে থাকছে ২৫% ছাড়, আর ৯৯০ টাকার বই কিনলে একটি কমিক্স উপহার। স্যারের সকল বই দেখুন এখানে

উপন্যাস :

  • আকাশ বাড়িয়ে দাও (১৯৮৭)
  • বিবর্ণ তুষার (১৯৯৩)
  • দুঃস্বপ্নের দ্বিতীয় প্রহর (১৯৯৪)
  • কাচসমুদ্র(১৯৯৯)
  • সবুজ ভেলভেট (২০০৩)
  • ক্যাম্প (২০০৪)
  • মহব্বত আলীর একদিন (২০০৬)

ছোট গল্প :

  • একজন দুর্বল মানুষ-(১৯৯২)
  • ক্যাম্প ( ? )
  • ছেলেমানুষী-(১৯৯৩)
  • নুরূল ও তার নোটবই-(১৯৯৬)
  • মধ্যরাত্রিতে তিন দূর্ভাগা তরুণ-(২০০৪)

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী :

  • কপোট্রনিক সুখ দুঃখ (১৯৭৬)
  • মহাকাশে মহাত্রাস (১৯৭৭)
  • ক্রুগো (১৯৮৮)
  • ট্রাইটন একটি গ্রহের নাম (১৯৮৮)
  • বিজ্ঞানী সফদর আলীর মহা মহা আবিস্কার (১৯৯২)
  • ওমিক্রমিক রূপান্তর (১৯৯২)
  • টুকুনজিল (১৯৯৩)
  • যারা বায়োবট (১৯৯৩)
  • নি:সঙ্গ গ্রহচারী (১৯৯৪)
  • ক্রোমিয়াম অরণ্য (১৯৯৫)
  • ত্রিনিত্রি রাশিমালা (১৯৯৫)
  • নয় নয় শূন্য তিন (১৯৯৬)
  • অনুরণ গোলক (১৯৯৬)
  • টুকি ও ঝায়ের (প্রায়) দুঃসাহসিক অভিযান (১৯৯৭)
  • পৃ (১৯৯৭)
  • রবো নগরী (১৯৯৭)
  • একজন অতিমানবী (১৯৯৮)
  • সিস্টেম এডিফাস (১৯৯৮)
  • মেতসিস (১৯৯৯)
  • ইরন (২০০০)
  • জলজ (২০০০)
  • ফোবিয়ানের যাত্রী (২০০১)
  • প্রজেক্ট নেবুলা (২০০১)
  • ত্রাতুলের জগৎ (২০০২)
  • বেজি (২০০২)
  • শাহনাজ ও ক্যাপ্টেন ডাবলু (২০০৩)
  • সায়রা সায়েন্টিস্ট (২০০৩)
  • ফিনিক্স (২০০৩)
  • সুহানের স্বপ্ন (২০০৪)
  • অবনীল (২০০৪)
  • নায়ীরা (২০০৫)
  • বিজ্ঞানী অনিক লুম্বা (২০০৫)
  • রুহান রুহান (২০০৬)
  • জলমানব (২০০৭)
  • অন্ধকারের গ্রহ (২০০৮)
  • অক্টোপাসের চোখ (২০০৯)
  • ইকারাস (২০০৯)
  • রবোনিশি (২০১০)
  • প্রডিজি (২০১১)
  • কেপলার টুটুবি (২০১২)
  • ব্ল্যাক হোলের বাচ্চা (২০১৩)
  • এনিম্যান (২০১৪)
  • সেরিনা(২০১৫)

কিশোর উপন্যাস :

  • হাতকাটা রবিন-(১৯৭৬)
  • দীপু নাম্বার টু (উপন্যাস)-(১৯৮৪) (চলচ্চিত্র রূপ, ১৯৯৬)
  • দুষ্টু ছেলের দল-(১৯৮৬)
  • আমার বন্ধু রাশেদ-(১৯৯৪) (চলচ্চিত্র রূপ, ২০১১)
  • টি-রেক্সের সন্ধানে-(১৯৯৪)
  • স্কুলের নাম পথচারী-(১৯৯৫)
  • জারুল চৌধুরীর মানিকজোড়-(১৯৯৫)
  • রাজু ও আগুনালির ভুত-(১৯৯৬)
  • বকুলাপ্পু-(১৯৯৭)
  • বুবুনের বাবা-(১৯৯৮)
  • বাচ্চা ভয়ংকর কাচ্চা ভয়ংকর-(১৯৯৮)
  • নিতু ও তার বন্ধুরা-(১৯৯৯)
  • মেকু কাহিনী-(২০০০)
  • শান্তা পরিবার-(২০০২)
  • কাজলের দিনরাত্রি-(২০০২)
  • কাবিল কোহকাফী-(২০০৩)
  • দস্যি ক’জন-(২০০৪)
  • আমি তপু-(২০০৫)
  • লিটু বৃত্তান্ত-(২০০৬)
  • লাবু এল শহরে-(২০০৭)
  • বৃষ্টির ঠিকানা-(২০০৭)
  • নাট বল্টু-(২০০৮)
  • মেয়েটির নাম নারীনা-(২০০৯)
  • রাশা-(২০১০)
  • আঁখি এবং আমরা ক’জন-(২০১১)
  • দলের নাম ব্ল্যাক ড্রাগন-(২০১১)
  • রাতুলের রাত রাতুলের দিন-(২০১২)
  • রূপ-রূপালী-(২০১২)
  • ইস্টিশন-(২০১৩)
  • গাব্বু-(২০১৩)
  • টুনটুনি ও ছোটচাচ্চু-(২০১৪)

কিশোর গল্প :

  • আমড়া ও ক্র্যাব নেবুলা-(১৯৯৬)
  • আধুনিক ঈশপের গল্প-(১৯৯৬)
  • তিন্নি ও বন্যা-(১৯৯৮)

শিশুতোষ :

  • বুগাবুগা-(২০০১)
  • সাগরের যত খেলনা-(২০০২)
  • রতন-(২০০৮)
  • ঘাস ফড়িং-(২০০৮)
  • হাকাহাকি ডাকাডাকি-(২০০৮)
  • ভূতের বাচ্চা কটকটি-(২০১১)

ভ্রমণ ও স্মৃতিচারণ :

  • আমেরিকা-(১৯৯৭)
  • সঙ্গি সাথী পশু পাখি-(১৯৯৩)
  • আধ ডজন স্কুল-(১৯৯৬)
  • তোমাদের প্রশ্ন আমার উত্তর-(২০০৪)
  • রঙিন চশমা-(২০০৭)
  • আরো প্রশ্ন আরো উত্তর-(২০১২)

বিজ্ঞান ও গণিত বিষয়ক :

  • দেখা আলো না দেখা রূপ-(১৯৮৬)
  • বিজ্ঞানের একশ মজার খেলা-(১৯৯৪)
  • নিউরণে অনুরণন-(২০০২)
  • নিউরণে আবারো অনুরণন-(২০০৩)
  • গনিত এবং আরও গণিত-(২০০৩)
  • আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড: প্রশ্ন ও উত্তর-(২০০৪)
  • একটু খানি বিজ্ঞান-(২০০৭)
  • গণিতের মজা মজার গণিত-(২০০৭)
  • থিওরি অফ রিলেটিভিটি-(২০০৮)
  • কোয়ান্টাম মেকানিক্স-(২০০৯)
  • আরো একটু খানি বিজ্ঞান-(২০১০)

কলাম সংকলন :

  • দেশের বাইরে দেশ-(১৯৯৩)
  • সাদাসিধে কথা-(১৯৯৫)
  • নিঃসঙ্গ বচন-(১৯৯৮)
  • প্রিয় গগন ও অন্যান্য-(১৯৯৯)
  • হিমঘরে ঘুম ও অন্যান্য-(২০০০)
  • পৃথিবীর সৌন্দর্য এবং আলফ্রেড সরেন-(২০০১)
  • ২০৩০ সালের একদিন ও অন্যান্য-(২০০২)
  • দুঃস্বপ্নের রাত এবং দুর্ভাবনার দিন-(২০০৩)
  • এখনো স্বপ্ন দেখায়-(২০০৪)
  • ক্রসফায়ার এবং অন্যান্য-(২০০৫)
  • আরো একটি বিজয় চাই-(২০০৬)
  • ভবদহের গল্প এবং অন্যান্য-(২০০৭)
  • বৈশাখের হাহাকার ও অন্যান্য-(২০০৮)
  • স্বপ্নের দেশ ও অন্যান্য-(২০০৯)
  • ঢাকা নামের শহর ও অন্যান্য-(২০১০)
  • এক টুকরো লাল সবুজ কাপড়-(২০১১)
  • বদনখানি মলিন হলে-(২০১২)
  • রাজনীতি নিয়ে ভাবনা ও অন্যান্য-(২০১৩)

 ভৌতিক সাহিত্য :

  • প্রেত-(১৯৮৩)
  • পিশাচিনী-(১৯৯২)
  • নিশিকন্যা-(২০০৩)
  • ছায়ালীন-(২০০৬)
  • ও-(২০০৮)
  • দানব-(২০০৯)

টিভি নাটক :

  • গেস্ট হাউস
  • ঘাস ফড়িঙের স্বপ্ন
  • শান্তা পরিবার
  • একটি সুন্দর সকাল
  • লিরিক

 রেডিও নাটক :

  • শুকনো ফুল রঙ্গিন ফুল, (২০১১)। সহায়তায় ইউনিসেফ

 মুক্তিযুদ্ধ :

  • মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস-(২০০৯)
  • ছোটদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস-(২০০৯)

 

LEAVE A REPLY