রবি ঠাকুর-এর যে ৫ টি তথ্য নতুন করে জানতে পারেন

2

114

রবি ঠাকুর-এর যে ৫ টি তথ্য নতুন করে জানতে পারেন

  • 0
  • #লেখক কুঞ্জ
  • Author: Zahid Hasan
  • Share

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ছিলেন অগ্রণী বাঙালি কবি, ঔপন্যাসিক, সংগীতস্রষ্টা, নাট্যকার, চিত্রকর, ছোটগল্পকার, প্রাবন্ধিক, অভিনেতা, কণ্ঠশিল্পী ও দার্শনিক। তাঁকে বাংলা ভাষার সর্বশ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক মনে করা হয়। রবীন্দ্রনাথকে গুরুদেব, কবিগুরু ও বিশ্বকবি অভিধায় ভূষিত করা হয়। রবীন্দ্রনাথের ৫২টি কাব্যগ্রন্থ, ৩৮টি নাটক, ১৩টি উপন্যাস ও ৩৬টি প্রবন্ধ ও অন্যান্য গদ্যসংকলন তাঁর জীবদ্দশায় বা মৃত্যুর অব্যবহিত পরে প্রকাশিত হয়। তাঁর সর্বমোট ৯৫টি ছোটগল্প ও ১৯১৫টি গান যথাক্রমে গল্পগুচ্ছ ও গীতবিতান সংকলনের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের যাবতীয় প্রকাশিত ও গ্রন্থাকারে অপ্রকাশিত রচনা ৩২ খণ্ডে রবীন্দ্র রচনাবলী নামে প্রকাশিত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের যাবতীয় পত্রসাহিত্য উনিশ খণ্ডে চিঠিপত্র ও চারটি পৃথক গ্রন্থে প্রকাশিত। এছাড়া তিনি প্রায় দুই হাজার ছবি এঁকেছিলেন। রবীন্দ্রনাথের রচনা বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে। ১৯১৩ সালে গীতাঞ্জলি কাব্যগ্রন্থের ইংরেজি অনুবাদের জন্য তিনি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।

তবুও নতুন করে তার যে ৫ টি তথ্য নতুন করে জানতে পারেন-

১) প্রথম নন-ইউরোপিয়ান নোবেল বিজয়ীঃ

১৯১৩ সালে সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হিসেবে নাম ঘোষনার পরপরই রবি ঠাকুর হয়ে যান ইতিহাসের প্রথম নন-ইউরোপিয়ান নোবেল বিজয়ী। নোবেল বিজয়ের পর পদকটি রাখা হয়েছিল কবির নিজের হাতে গড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শান্তিনিকেতনের বিশ্বভারতী জাদুঘরে।  ২০০৪ সালে বিশ্বভারতী জাদুঘর থেকে চুরি হয়ে যায় রবীন্দ্রনাথের নোবেল পদকটির সাথে রুপোর রেকাবি, রুপোর কফি কাপ, সামুরাই তরবারি, কফি কাপ রাখার তেপায়া, চৈনিক চামুচ, কোবে শহর থেকে পাওয়া হাতির দাঁতের ঝাঁপিসহ আরও ৩৭টি জিনিস।

২) চিঠি প্রিয়তাঃ

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শেষ চিঠি লিখেছিলেন পুত্রবধু প্রতিমা দেবীকে মৃত্যুর ১ সপ্তাহ আগে ১৯৪১ সালের ৩০ কিংবা ৩১ জুলাই,  সেই চিঠিতে যা লিখা ছিলো-

“ তোমাকে নিজের হাতে কিছু লিখতে পারিনে বলে কিছু লিখতে রুচি হয় না”

ধারণা করাহয় রবীন্দ্রনাথ তার জীবদ্দশায় প্রায় ৫০০০ এরও বেশী চিঠি লিখেছিলেন এবং চিঠিগুলো লেখা হয়েছিলো প্রায় পাঁচ শতাধিক ব্যক্তিকে। বিভিন্নভাবে সংগ্রহ করা প্রায় ৪ হাজার চিঠি মুদ্রিত হয়েছে সাময়িক পত্র-পত্রিকায়। এই চিঠিগুলো তিনি লিখেছিলেন ৩২০ জনকে।

চিঠির জন্য কবির ব্যাকুলতার তীব্রতা প্রকাশ পেয়েছে ‘মানসী’ কাব্যগ্রন্থের ‘পত্রের প্রত্যাশা’ কবিতায়। ‘চিঠি’ নামে কবিতাটি আছে ‘পূরবী’  তে। ‘পত্র’ শিরোনামেও তার কয়েকটি কবিতা আছে বিভিন্ন কাব্যগ্রন্থে ।

রবীঠাকুর প্রতিষ্ঠিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্বভারতী গ্রন্থালয়ের প্রথম বই ছিলো ‘পূরবী’ । যাকে তিনি ‘অন্যতম শ্রেষ্ঠ রচনা’ বলে আখ্যায়িত করেছিলেন বলে জানা যায়। ( তথ্যসুত্রঃ রবীন্দ্রনাথ ও ভিক্তোরিয়া ওকাম্পো’র সন্ধানে- কেতকী কুশারী ডাইশন)

 

৩) ভিক্টোরিয়া ওকাম্পো, রবি ঠাকুরের সাথে যাকে নিয়ে ছিলো কিছু অশ্রুত গুঞ্জনঃ

রবি ঠাকুর তাকে ডেকেছিলেন বিজয়া নামে কিন্তু তার ছিলো ‘ভিক্টোরিয়া ওকাম্পো’, কথিত আছে তার সাথে রবি ঠাকুরের গরে ওঠেছিলো রহস্যময় প্লেটোনিক ধরণের এক রোমান্টিক সম্পর্ক, যদিও তখন রবীন্দ্রনাথ ছিলেন ৬৪ আর ওকাম্পো ছিলেন ৩৪।

অনেকে ধারণা করেন পূরবী  কাব্যগ্রন্থের পুরোটা রচিত হয়েছিলো ওকাম্পোকে মাথায় রেখে, কিন্তু যদিও সাধারণভাবে অনেকেই মনে করেন পূরবী কাব্যগ্রন্থের সবগুলো কবিতাই ওকাম্পোকে মাথায় রেখে রচিত হয়ছিল, তা সার্বিকভাবে সত্য নয়। কাব্যগ্রন্থটির কেবল এক তৃতীয়াংশ কবিতার সাথে (৭৮টি কবিতার মধ্যে ২৯টি কবিতায়) আর্জেন্টেনীয় যোগাযোগ পাওয়া গেছে। তার মধ্যে তিনটি কবিতা আবার লেখা হয়েছিল সান ইসিদ্রোতে ভিক্টোরিয়ার সান্নিধ্য এবং আতিথ্য পাবার আগেই।

বিষদ জানতে পড়তে পারেন কেতকী কুশারী ডাইশন-এর রবীন্দ্রনাথ ও ভিক্তোরিয়া ওকাম্পো’র সন্ধানে

 

৪) চিত্রশিল্পী রবীন্দ্রনাথ

৬০ বছর বয়সে এসে তিনি ছবি আঁকায় মনোনিবেশ করেন। তার আঁকা ছবি দিয়ে বেশ কয়েকটি সফল প্রদর্শনীও হয়েছে। তিনিই প্রথম ভারতীয় চিত্রশিল্পী যার প্রদর্শনী হয়েছিলো ইউরোপ, রাশিয়া এবং আমেরিকায়, সময়ের হিসেবে সাল ছিলো ১৯৩০ । তথ্যসুত্রঃ দা হিন্দু

তার আকা কিছু ছবি-

Rabindranath Tagore (1861-1941) – Woman Face, Ink on paper, 50.8 x 53 cms, (Acc. No. 1241), National Gallery of Modern Art, New Delhi
Rabindranath Tagore (1861-1941) – Seven Figures, Ink on paper, 59 x 46 cms, (Acc. No. 994), National Gallery of Modern Art, New Delhi

 

৫) মডেল ও কপিরাইটার রবীন্দ্রনাথ

কবির জীবনের এক অপরিচিত দিক হলো তিনি জীবদ্দশায় ছিলেন বিজ্ঞাপণের এক জনপ্রিয় তারকা, প্রায় ১০০ টি পণ্যের বিজ্ঞাপন করেছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। সেগুলো প্রকাশিত হয়েছিলো বিভিন্ন ম্যাগাজিন ও পত্রপত্রিকায়। পণ্যের বিজ্ঞাপনে রবীন্দ্রনাথ বিষয়ে প্রাথমিকভাবে তথ্যউপাত্ত সংগ্রহ করেছেন কলকাতার মাসিক ‘পূরশ্রী’ পত্রিকার সম্পাদক অরুণ কুমার

স্বদেশি শিল্পাদ্যোগকে উৎসাহ দিতে এবং তা সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতেই তিনি দেশীয় পণ্যের জন্য বাণী লিখে দিতেন। ব্যবসায়ীরা এগুলোকে বিজ্ঞাপন হিসেবে ব্যবহার করতেন।
রবি ঠাকুরের লেখা কিছু বিজ্ঞাপনঃ

সুলেখা কালির বিজ্ঞাপনে তিনি লিখেছিলেন, ‘সুলেখা কালি। এই কালি কলঙ্কের চেয়েও কালো।’

রবীন্দ্রনাথের জনপ্রিয় একটি বিজ্ঞাপন ছিল জলযোগ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের জন্য। ওই বিজ্ঞাপনে রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন, ‘জলযোগের বানানো মিষ্টান্ন আমি চেখে দেখেছি। এটা আমাকে তৃপ্তি দিয়েছে। এর আলাদা স্বাদ আছে।…’ ।
শ্রীঘৃত সম্পর্কে তিনি লিখে দেন, ‘বাংলায় ঘিয়ের ভেজাল বাঙালির অন্ত্রের ভেজালকেও অনিবার্য করে তুলেছে। আমি আশা করি শ্রীঘৃত বাঙালির এই ভেজাল রোগের প্রতিকার করবে’।

এমনি বিচিত্র ছিলো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবনী, বিচিত্র রবীন্দ্রনাথকে জানতে সংগ্রহ করতে পারেন তার লেখা সেরা সব সাহিত্যকর্ম এই লিঙ্ক এ

৩০ খন্ডে রবীন্দ্ররচনাবলী সংগ্রহ করতে পারেন এই লিঙ্ক থেকে

Write a Comment