কিভাবে বইয়ের রিভিউ লিখবেন!!!

8

504

কিভাবে বইয়ের রিভিউ লিখবেন!!!

  • 0
  • #বই রিভিউ
  • Author: Zahid Hasan
  • Share

প্রথমেই রিভিউ লেখার গুরুত্ব নিয়ে একটু আলোচনা করতে হবে। এই যে এত কষ্ট করে রিভিউ লিখবেন, কেন লিখবেন? যে সময়টা নষ্ট করে একটা রিভিউ লিখবেন সেই সময়ে আপনি আরেকটা বইয়ের অর্ধেক শেষ করে ফেলতে পারতেন। তবে কেন?

বিশ্ব সাহিত্যের কথা বাদই দিলাম। শুধুমাত্র বাংলা সাহিত্যে এত পরিমাণ বই আছে যা আমরা এক জীবনে পড়ে শেষ করতে পারব না। জীবনটা অনেক ছোট, অত সময় কই নিজের পছন্দের বাইরে বই পড়ার? এখন, কোন বইটা আপনার পছন্দের সাথে যায় কোনটা যায়না তা শুধুমাত্র নাম দেখেই আপনার পক্ষে বোঝা সম্ভব হবেনা। সে জন্যেই রিভিউ। একটি রিভিউ পড়তে এক মিনিট লাগে, রিভিউ পড়ার পর আপনি বইটি সম্পর্কে সম্যক ধারণা পাবেন। বুঝতে পারবেন বইটি আপনার পড়া উচিৎ না ওয়েস্ট অভ টাইম। এখন সবাই যদি শুধু রিভিউ পড়তেই চান তাহলে লিখবে কে? কাউকে না কাউকে তো লিখতেই হবে? কাউকে না কাউকে তো এগিয়ে আসতে হবে সাহিত্যকে এগিয়ে নিয়ে যেতে।

দেখে নিন রকমারি বেস্ট সেলার বইগুলো

 

নিয়মিত রিভিউ লেখার কারণে এবং রিভিউ নিয়ে কাজ করার কারণে বিভিন্ন সময় অনেকেই আমাকে জিজ্ঞেস করেছেন কিভাবে রিভিউ লিখবেন। বিভিন্ন পোস্টের কমেন্টে আমি সেটা বলার চেষ্টা করেছি, অনেকে বুঝেছেন অনেকে বোঝেননি। তাই আজকে সহজ ভাষায় রিভিউ লেখা নিয়ে আলোচনা করব। প্রথমেই বলে নিচ্ছি, রিভিউ লেখা খুবই সহজ একটা কাজ। এমনকি আপনারা অহরহ বিভিন্ন বিষয়ে রিভিউ দিয়েছেন। বাজার থেকে নতুন একটা টুথপেস্ট কিনেছেন বেশি দাম দিয়ে। সবাই জিজ্ঞেস করবে, “কিরে এতো দাম দিয়ে এটা কেন কিনেছিস? সবসময় তো অমুকটা ব্যবহার করেছিস” তখন হয়তো আপনি উত্তর দিয়েছেন, “আরে কয়দিন থেকে দাতের মাড়ি থেকে রক্ত পড়ে, তমুক ভাই বলেছে এটা ব্যবহার করলে রক্তপড়া বন্ধ হয়, তাছাড়া মাড়িও মজবুত করে”।

দেখে নিন রকমারি কালেকশন

 

এই যে তমুক ভাইয়ের থেকে যেটা শুনেছেন সেটাই কিন্তু রিভিউ। দুদিন ব্যবহার করার পর আপনিও হয়তো কাউকে ওটার সম্পর্কে ভালো মন্দ বলবেন। এটাই কিন্তু রিভিউ। বইয়ের রিভিউর ব্যাপারটাও কিন্তু একই। বইটি পড়লেন, পড়ার পর কেমন লেগেছে, ভালো না মন্দ, ভালো বা মন্দ লাগলে কেন লেগেছে এসব নিয়ে আলোচনা করলেই কিন্তু রিভিউ হয়ে যায়। শুধু দরকার কথাগুলো একটু গুছিয়ে লেখা। একদিনেই হয়তো আপনি প্রথম সারির রিভিউ রাইটার হয়ে যাবেন না, তবে লিখতে থাকলে একদিন অবশ্যই হবেন।

রিভিউর লেখার জন্য ধরাবাঁধা কোনো নিয়ম বা ব্যাকরণ নেই। নিজের মত করে যেভাবে ইচ্ছা সেভাবেই আপনি লিখতে পারেন রিভিউ। তবে বইয়ের রিভিউ লেখার ক্ষেত্রে নুন্যতম তিনটা শর্ত পূরণ করতে হবে।

১. বইয়ের তথ্যঃ বইয়ের নাম, লেখক/অনুবাদকের নাম, প্রকাশক, পৃষ্ঠা সংখ্যা, মূল্য, প্রচ্ছদ ইত্যাদি। এই তথ্যগুলো একজন নতুন পাঠকের জন্য সহায়ক হবে। রিভিউ পড়ার পর তিনি যদি বইটি পড়ার ইচ্ছা পোষণ করেন তবে তিনি জানতে পারবেন বইটি কত টাকায় কোত্থেকে কিনতে পারবেন। তথ্যগুলো রিভিউর শুরুতেই দিতে হবে এমন কোনো কথা নেই, মাঝখানেও দিতে পারেন আবার শেষেও দিতে পারেন। পয়েন্ট আকারে দিতে পারেব আবার প্যারা আকারেও দিতে পারেন। আমি নিচে উদাহারণ দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছি।

১.১
বইঃ শকুনের চোখ
লেখকঃ মাসুম আহমেদ আদি
প্রকাশকঃ চিরকুট প্রকাশনী
প্রচ্ছদঃ আদনান আহমেদ রিজন
পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ২২০
মূল্যঃ ৩২০ টাকা মাত্র

১.২ মাসুম আহমেদ আদির শকুনের চোখ বইটি কিনেছিলাম ২৬০ টাকায়। মুদ্রিত মূল্য ৩২০ হলেও ২৫% ছাড় পেয়েছিলাম। নতুন হলেও চিরকুট প্রকাশনীর বইয়ের বাঁধাই এবং কাগজের গুণগত মান ভালো। ২২০ পৃষ্ঠার বইয়ের হিসেবে মূল্যও ঠিক আছে।

খেয়াল করুন, উপরে দুইভাবে বইয়ের তথ্য লিখলাম। প্রথমটায় যা যা আছে দ্বিতীয়টায় তা-ই কিন্তু আছে। আপনারা যেভাবে কিখতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন সেভাবেই লিখবেন।

২. নিজের মত করে কাহিনী সংক্ষেপঃ অনেকে বইয়ের ফ্ল্যাপ থেকে কাহিনী সংক্ষেপ দিয়ে দেয়। কিন্তু আমার মনে হয় নিজের মত করে লিখাই ভাল। তবে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন কোনোভাবেই যেন গল্পের টুইস্ট প্রকাশ না পায়। টুইস্ট মানে হল গল্পের এমন কোনো তথ্য যা আগে থেকেই প্রকাশ পেয়ে গেলে পাঠক পড়ার সময় মজা পায়না। ধরুন, গল্পের শেষে নায়ক বা নায়িকা মারা গেল। এখন আপনি যদি রিভিউতে বলে দেন, নায়িকার মৃত্যুটা আমাকে কাঁদিয়েছে তাহলে সেটা স্পয়লার হয়ে যাবে। পুরো রিভিউটা যত ভালই লিখুন না কেন ঐ একটি কথাই রিভিউটাকে নষ্ট করে দিবে।

৩. পাঠ প্রতিক্রিয়াঃ বইটি পড়ার পর আপনার কেমন লেগেছে, অল্প কথায় বর্ণনা করবেন। কোন কোন ব্যাপার ভাল লেগেছে আর কোন ব্যাপারটা খারাপ লেগেছে এগুলো নিয়ে আলোচনা করবেন। লেখকের লেখার ধরণ কেমন, আহে তার কোনো বই পড়ে থাকলে সেটার সাথেও তুলনা করতে পারেন। বইটি পড়ে যদি আপনার খারাপ লাগে, একদমই সময় নষ্ট টাইপ মনে হয় সেটাও যথাযথ যুক্তি সহকারে আলোচনা করবেন। একজন লেখক অনেক কষ্ট করে একটি বই লিখেন, আপনি যদি এক কথায় বলে দেন বইটি খুব বাজে, ওয়েস্ট ইভ টাইম তাহলে বইটির যথাযথ মূল্যায়ন হলোনা। পাঠক হিসেবে আপনার যেমন ভালোমন্দ বলার অধিকার আছে, তেমনি লেখকেরও জানার অধিকার আছে কেন বইটি আপনার ভালো লাগেনি, কী কী বিষয় আপনার খারাপ লেগেছে, কেন লেগেছে? এগুলো জানলেই পরবর্তী বইয়ে তিনি নিজেকে শোধরাতে পারবেন।

ব্যস এই তিনটা ব্যাপার খেয়াল রাখলেই হয়ে যাবে একটি উৎকৃষ্ট রিভিউ।

লিখেছেনঃ লেখক মাসুম আহমেদ আদি 

Write a Comment

Related Stories