“মোটিভেশনাল বই পড়া সময় নষ্ট ছাড়া কিছুই না”

2021-04-03 মোটিভেশানাল বই পড়া, সময় নষ্ট ছাড়া কিছুই না- ঝংকার মাহবুব

পাঠকসমাজে তাঁর পরিচিতি এখন গৎবাঁধা লেখার বাইরে নতুনত্বের আমেজ এনে দেওয়া তরুণ লেখক হিসেবে। তিনি ঝংকার মাহবুব, পেশায় একজন ওয়েব ডেভেলপার। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক পাশ করার পর যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ডাকোটা স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে কম্পিউটার সাইন্সে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন এই লেখক। বাংলাদেশের তরুণ লেখকদের মধ্য থেকে ঝংকার মাহবুবের বই আলাদা করা যায় খুব সহজেই। তাঁর লেখার বিষয়গুলোও ব্যতিক্রমধর্মী। তাঁর নতুন মোটিভেশানাল বই “চেষ্টার জিমনেশিয়াম ফিউচারের ক্যালসিয়াম“।  এই বই নিয়ে কথা বলতেই রকমারি ব্লগের মুখোমুখি হয়েছেন তিনি।

কেমন আছেন ?

– চমৎকারের খুবই কাছাকাছি।

হা হা। পুরাপুরি চমৎকার না কেন?

– ভালো লাগার কিছু পার্সেন্টেজ, গরমের কামড়ে, মশার সংগীতে খেয়ে ফেলেছে তো, তাই।

লেখক ঝংকার মাহবুব।

আপনার নতুন মোটিভেশনাল বই “চেষ্টার জিমনেশিয়াম ফিউচারের ক্যালসিয়াম”। এই বইটি’র বিষয়বস্তু সম্পর্কে একটু যদি বলতেন।

– বইটি আসলে বিভিন্ন প্রকার বাঁশ নিয়ে।

বাঁশ বলতে?

– একটা স্টুডেন্ট যখন ভার্সিটি লাইফে প্রবেশ করে তখন তাকে একটু ম্যাচিউর্ড হতে হয়। এই সময়টায় অনেক রকম বাঁধা আসে। এই সময়টায় ফ্যামিলি থেকে আর্থিকভাবে সাহায্য চাওয়া যায় না, নতুন অনেকের সঙ্গে পরিচয় হয়। কিন্তু কাকে বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করতে হবে তা হয়তো বুঝতে সমস্যা হয়। ক্যারিয়ার সেট করতে এই সময়টায় কী কী করা দরকার তা বুঝতে সমস্যা হয়। অর্থাৎ লাইফটাকে গাইড করে একটা রিজনেবল স্টেজে নিয়ে যাওয়াটা খুব কষ্টকর হয়। বাংলাদেশের বেশিরভাগ স্টুডেন্ট এই ক্রাইসিস মোমেন্টের মধ্য দিয়ে যায়। একটু চলিত ভাষায় বললে, নানা রকম বাঁশের মধ্য দিয়ে যায়। এগুলো কীভাবে এফিশিয়েন্টলি, এফেক্টিভলি এবং স্ট্র‍্যাজিটিকভাবে হ্যান্ডেল করতে হবে সেই জিনিসটা তুলে ধরতে চাইছি।

এই বইটি’র বিশেষত্ব কী?

– বর্তমানে যারা স্টুডেন্ট, তাদেরকে লাইফে অনেক কিছু শেখানো হয় না। কিন্তু অনেক রকম ডিসিশান আমাদের নিতে হয়। যেমন: ফ্রেন্ড সিলেকশান, পড়াশুনা কতটুকু করা উচিত, এঞ্জয় কতটুকু করবো বা ক্যারিয়ারটা কীভাবে একটু সেট করতে হবে। এরকম সিচুয়েশানের শিক্ষা কিন্তু আমাদের পাঠ্য বই বা স্কুল কলেজ থেকে পাওয়া যায় না। অথচ এই সিদ্ধান্তগুলোই একটা স্টুডেন্টের পরবর্তী জীবনটা গড়ে দেয়। আমি শত শত স্টুডেন্ট দেখেছি এই সিদ্ধান্তগুলো না নিতে পারায় জীবনটা সুন্দর হয় নি। এই বিষয়গুলোই বইটিতে ফোকাস করা আছে। যা তার জীবনকে হয়তো সিম্পলের মধ্যে গর্জিয়াস করে ফেলতে পারে।

বইটি পড়ার জন্য কোনো বিশেষ নিয়ম অনুসরণ করতে হবে কি?

– সেরকম কিছু নেই। তবে, বইটা পড়ার সময় নিজের সঙ্গে মেলানো, হাইলাইট করে রাখা। যেন ফিউচারে এই সিচুয়েশান ফেস করলে সে অনুযায়ী কাজ করতে পারে। অর্থাৎ বইটাকে একটু গাইডলাইন হিসেবে পড়লে বেশি উপকৃত হবে।

সুইডেনে’র পথে পথে।

এবার একটু ভিন্ন প্রসঙ্গে আসি। ইদানীং অনেকেই মোটিভেশানাল বই লিখছেন। বলা বাহুল্য, পাঠকপ্রিয়তাও পাচ্ছেন। আপনি নিজেও এর আগে এই ক্যাটাগরিতে দুটো বই লিখেছেন। এই ধরণের বইগুলো নিয়ে আপনার মূল্যায়ন কী?

মোটিভেশনাল বই হোক আর ভিডিও হোক, এগুলা সময় নষ্ট ছাড়া আর কিছুই না। সত্যি বলতে মোটিভেশান এক ধরণের বিনোদন। শুনতে ভালো লাগে তাই সবাই শুনে। মোটিভেশান শুনে কারো লাইফে কোনো পরিবর্তন আসে না। বরং যেটা দিয়ে লাইফে পরিবর্তন আসে সেটা হচ্ছে- কাজ দিয়ে। সেই কাজ করার জন্য যার প্রতিদিন মোটিভেশান লাগে সে আসলে কাজ করার মধ্যে নাই। তাকে দিয়ে কিছু হবে না। আর যে রেগুলার কাজ করে, নিজের ভেতরে একটা চাহিদা আছে। সে আসলে মোটিভেশান খোঁজে, ডিরেকশন খোঁজে। অর্ধেক চলে যাওয়ার পর বাকি অর্ধেক যাওয়ার গাইডলাইন খুঁজে। তারাই আসলে এগিয়ে যায়। বাকিরা মোটিভেশান নিয়ে নাক ঢেকে ঘুমিয়ে পড়ে।

গতবার বইমেলায় ছিলেন, এবার থাকতে পারছেন না। বইমেলাকে কতটুকু মিস করছেন?

– ভীষণ মিস করছি। মেলা খুব স্পেশাল জিনিস, মেলা অনেকটা মেলবন্ধনের মতো। হয়তো আমি বইটা লিখেছি কিন্তু এই বইটা যাদের কাছে যাচ্ছে তাদের দৃষ্টিভঙ্গিটা আমি গতবছর পাঠকদের সঙ্গে কথা বলে বুঝতে পেরেছি। আর এই বইটা লেখার ক্ষেত্রে গতবছর মেলায় যাওয়াতে অনেক প্রভাব রেখেছে। কারণ গতবার কথা বলে আমি তাদের দৃষ্টিভঙ্গি, সমস্যা আরও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে পেরেছি। ভার্চুয়ালি আমরা যত জনের সঙ্গে কথা বলি, মেলায় সেই মানুষদের অনুভব করার একটা বড় মাধ্যম বইমেলা। তাই বইমেলাকে যে মিস করছি তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এবারও যদি থাকতে পারতাম খুব ভালো লাগতো।

ঝংকার মাহবুবের লেখা বইগুলো দেখতে ক্লিক করুন 

 

Rokomari Editor

Rokomari Editor

Rokomari is one of the leading E-commerce book sites in bangladesh

comments (1)

Leave a Comment

  1. anando

    Jhankar ভাইয়া আমার কাছে শুধু একজন সেরা লেখক নন। আমার প্রিয় মানুষ দের মধ্যে অন্যতম। এই ব্লগ পরে আমার সবচেয়ে ভাল যে জিনিষ টা লাগছে, সেটা হলঃ মোটিভেশনাল ভিডিও দেখে কোন লাভ নাই, যদিনা আমার সেটা আমাদের জীবনে প্রয়োগ করি।

Rokomari-blog-Logo.png
Loading