সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং , কাস্টমারদের কাছে পৌঁছানোর গুরুত্বপূর্ণ উপায়

ডিজিটাল মার্কেটিং-এর পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করতে ইচ্ছুকদের জন্য প্রয়োজনীয় বই
social media marketing feature image

কাস্টমার যেখানে, মার্কেটিং হবে সেখানে” মার্কেটিং কমিউনিকেশনের সেই শুরু থেকে এখন অব্দিই মানা হয় এই নীতি। বিশ্বের ৭.৮৩ বিলিয়ন মানুষের মধ্যে ৪.২ বিলিয়ন অর্থাৎ ৫৩.৬ পার্সেন্ট ব্যবহারকারী তাদের ধারণা, মতামত, তথ্য এবং পণ্য শেয়ার ও বিনিময় করার জন্য এখন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করছেন এবং এটা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মের বিকাশের সাথে মার্কেটিয়াররা তাদের কাস্টমারদের কাছে পৌঁছানোর উপায়ও পরিবর্তন করেছে।

লোকে এখন দিনের উল্লেখযোগ্য সময় থাকে সোশ্যাল মিডিয়ায়, তাই ব্র্যান্ডগুলোও হাজির সেখানে। সোশ্যাল মিডিয়ার পারসোনাল এলিমেন্ট ব্যবসাগুলিকে তাদের কাস্টমারদের সাথে যোগাযোগ গড়ে তুলতে এবং ব্র্যান্ড লয়ালেটি তৈরি করতে সুযোগ দেয়। বিশাল বড়ো অডিয়েন্স, উচ্চ ব্যবহারের মাত্রা, সঠিক লোকজনের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে এবং অনলাইন ও অফলাইন কমিউনিটি তৈরি এবং তাদের সাপোর্ট করতে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের গুরুত্ব ও চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। তাই এই বিষয়ে সুস্পষ্ট গাইডলাইন এবং প্রশিক্ষণেরও প্রয়োজন রয়েছে। শামস্ বিশ্বাস-এর ‘ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ‘ সেই প্রয়োজন পূরণ করার মতোই একটা বই।

বর্তমানে এমন একটা পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে যে ১ টাকার ব্রান্ড থেকে ১ কোটি টাকার ব্রান্ড সবাই মার্কেটিং করার জন্য ঘুরেফিরে ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম, ইউটিউব ইত্যাদিকেই বেছে নেয়। তো, এই সোশ্যাল মিডিয়াগুলোয় মার্কেটিং করতে গেলে যেসব বিষয়ে অবশ্যই ধারণা থাকতে হবে, যা নিয়ে প্রচুর রিসার্চ করতে হবে এবং যে সকল টিপস এবং ট্রিক্স ব্যবহার করলে মার্কেটিং করে আরো লাভবান হওয়া সম্ভব – এসব নিয়েই শামস্ বিশ্বাস এর লেখা বই ‘ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ‘।

বইটিতে মোট ১২টি অধ্যায় রয়েছে। ডিজিটাল মার্কেটারদের উদ্দেশ্য করে লেখা এ বইটিতে আপনি পাবেন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং -এর বেসিক কিছু ধারণা। সোশ্যাল মিডিয়া ল্যান্ডস্কেপ, সোশ্যাল মিডিয়ায় মার্কেটিং-এর জন্য কিভাবে সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম বেছে নেবেন, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং স্ট্রাটেজি, ব্যবসার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট তৈরি করা, কনটেন্ট প্ল্যান, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে বিক্রয়, যেভাবে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের ফলাফল পরিমাপ, সোশ্যাল মিডিয়া পলিসি তৈরি, কোম্পানির জন্য ব্লগ ব্যবহার এবং সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং -এ ক্যারিয়ার ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

বইটিতে চমৎকারভাবে ধারণা দেয়া হয়েছে ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম, লিংকডইন, কোরাসহ আরো বেশ কিছু জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে মার্কেটিং করার কৌশল সম্পর্কে। তাই ডিজিটাল মার্কেটারদের পাশাপাশি যারা ফ্রিল্যান্সিং করতে ইচ্ছুক, তাদেরও বেশ কাজে লাগবে বইটি।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং/শামস বিশ্বাস
BUY NOW

মার্কেটিংয়ের শীর্ষ সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মগুলো হচ্ছে, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউব, হোয়াটসঅ্যাপ, টুইটার, লিংকডইন, উইচ্যাট, টিকটক, স্ন্যাপচ্যাট, পিন্টারেস্ট, টুইচ, ডিভিয়েন্ট আর্ট, টাম্বলার, মিডিয়াম, গিটহাব, স্ট্যাক ওভারফ্লো, কোরা, রেডিট, প্রোডাক্ট হান্ট, গুডরিডস, লেটারবক্সড, মাইফিটনেসপাল, নেক্সটডোর এবং মাইস্পেস। এইসব শীর্ষ সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে মার্কেটিং করতে যা যা প্রয়োজন তা খুব সুন্দরভাবে বইয়ে তুলে ধরা হয়েছে। মার্কেটিং করতে কাস্টমারদের সাথে সংযোগ, প্রোডাক্ট এবং সার্ভিস প্রদর্শন, বিজ্ঞাপন তৈরিসহ যা যা লাগবে, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং -এ সব তুলে ধরা হয়েছে।

বলা হয়ে থাকে, “Books are the storehouse of knowledge.” এ বইটিও আক্ষরিক অর্থেই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সম্পর্কিত জ্ঞানের ভাণ্ডার। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় যারা মার্কেটিং করতে চায় তাদের অবশ্যই বইটি পড়া উচিৎ। সোশ্যাল মিডিয়ায় মার্কেটিং নিয়ে এত তথ্যবহুল বিস্তারিত আলোচনা আর কোথাও হয়েছে কিনা আমার জানা নেই। সোশ্যাল মিডিয়ার মার্কেটিং এর প্রত্যেকটা বিষয়ে খুঁটিনাটি আলোচনা করা হয়েছে। ভোক্তারা কেন সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্র্যান্ডগুলিকে আনফলো করে এইসব বিষয়ে বলা হয়েছে।

একনজরে দেখে নিতে পারেন বইটির আলোচ্য সূচী-

◉ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং
◉ সোশ্যাল মিডিয়া ল্যান্ডস্কেপ
◉ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের জন্য সোশ্যল প্ল্যাটফর্ম বেছে নেয়া
◉ মার্কেটিংয়ের জন্য শীর্ষ সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম
◉ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং স্ট্রাটেজি
◉ ব্যবসার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট তৈরি
◉ কনটেন্ট প্ল্যান
◉ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে বিক্রয়
◉ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের ফলাফল পরিমাপ
◉ সোশ্যাল মিডিয়া পলিসি তৈরি
◉ ব্লগের ব্যবহার
◉ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ে ক্যারিয়ার

সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে দুই ভাবে পণ্য বা সেবা বিক্রি করার যায়- সরাসরি বিক্রয় এবং সহায়ক বিক্রয়। বইয়ে এসব বিষয়ে বিস্তারিত বলা হয়েছে। সোশ্যাল কর্মাস টুল হিসেবে ইনস্টাগ্রাম শপিং, ফেসবুক শপ, ইনস্টাগ্রাম লাইভ শপিং, পিন্টারেস্ট ক্যাটালগ এইসব মাধ্যম ব্যবহার করে ব্যবহারকারী কেনকাটা করতে পারে।

অন্যান্য অধ্যায়ের তুলনায় আমার কাছে সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে ‘সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং-এর ফলাফল পরিমাপ’ অধ্যায়টি। হয়তোবা এর কারণ এই যে, আমি এমন গাণিতিক উদাহরণ দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার মার্কেটিং সম্পর্কে আগে কোথাও জানতে পারি নি। আশা করি, আপনার কাছেও এই অধ্যায় সহ বাকি সকল অধ্যায়ই অত্যন্ত পছন্দ হবে।

সব মিলিয়ে অত্যন্ত চমৎকার এবং কার্যকরী বই ‘সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং’। লেখক তার জীবনের মার্কেটিং সম্পর্কিত অভিজ্ঞতা দারুণভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন বইটিতে। তাই যারা এ বই পড়েননি এখনো, তাদের আমি অনুরোধ করব একবার হলেও বইটি পড়ে দেখতে। আশা করি আপনারা অনেক নতুন বিষয় শিখতে পারবেন। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সম্পর্কে নতুন সব তথ্য পাবেন।

আরও পড়ুন- ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করার উপায় জানতে অব্যর্থ বইয়ের তালিকা

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বইটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে 

শামস্ বিশ্বাস-এর অন্যান্য বই দেখুন 

Leave a Comment

You May Also Like This Article

Rokomari-blog-Logo.png
Join our mailing list and get the latest updates
Loading