বিজ্ঞাপন সংস্থায় ক্যারিয়ার গড়বেন কীভাবে?

3

বিজ্ঞাপনী সংস্থার কাজ হলো, ক্লায়েন্টের পণ্যকে ক্রেতার সামনে তুলে ধরা। ক্রেতাদের নির্দিষ্ট কোনো শ্রেণি-পেশা, বয়স কিংবা স্টাডি ফিল্ড থাকে না। আর তাই বিজ্ঞাপনী সংস্থাগুলো নানা স্টাডি ফিল্ডের শিক্ষার্থীদের কাজের সুযোগ দিয়ে থাকে। কারণ- এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপনী সংস্থাগুলো সব ধরনের ক্রেতার চিন্তা মাথায় রেখে ভিন্ন ভিন্ন বিজ্ঞাপনী আইডিয়া তৈরি করতে পারে। সে হিসেবে বলা যায় বিজ্ঞাপন সংস্থায় ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ সব ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থীদের রয়েছে। এটি একটি ওপেন ক্যারিয়ার। কথাগুলো বলছিলেন বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞাপনী সংস্থা অ্যাডকম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজিম ফারহান চৌধুরী। রবির ভাইস প্রেসিডেন্ট জাভেদ পারভেজের সঞ্চালনায় ক্যারিয়ার ক্যাফে লাইভে নাজিম ফারহান বিজ্ঞাপনী সংস্থার কাজের ধরণ ও এই মাধ্যমে ক্যারিয়ারের নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেন। নাজিম ফারহানের কথায় উঠে আসা বিজ্ঞাপনী সংস্থার জানা-অজানা নানা দিক সম্পর্কে জানতে লেখাটি পড়তে থাকুন।

বিজ্ঞাপনী সংস্থার মূল কাজ

বিজ্ঞাপনী সংস্থার কাজ হলো ক্লায়েন্টের পণ্য বা সেবাকে ক্রেতার সামনে আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করা, যাতে ক্রেতারা সে পণ্য ক্রয় করতে উদ্বুদ্ধ হোন। একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়াকে অনুসরণ করে বিজ্ঞাপন নির্মাণ করতে হয়।

বিজ্ঞাপন নির্মাণের প্রক্রিয়া

নাজিম ফারহান বলেন, এটি মূলত একটি গ্রুপ ওয়ার্ক। ক্লায়েন্ট যখন কোনো পণ্য বা সেবার প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপন নির্মাণ করতে চায়, সেক্ষেত্রে প্রথমে স্ট্র্যাটেজিক থিংকাররা বিজ্ঞাপনের ধরণ নিয়ে চিন্তা করেন। তারপরের কাজ হলো ক্রিয়েটিভ থিংকারদের। তারা বিজ্ঞাপনের ভাষা বা স্ক্রিপ্ট তৈরি করেন। বিজ্ঞাপনটি সময় ও মানুষের চিন্তাধারার সাথে মিলছে কিনা, মানুষ বিজ্ঞাপনটি পছন্দ করবে কিনা এই বিষয়টি নিয়ে রিসার্চ প্যানেল কাজ করেন। সবশেষ বিজ্ঞাপনটি কোন মাধ্যমে প্রচার হবে (অনলাইন/টেলিভিশন/পত্রিকা ইত্যাদি) সে দিকটি মিডিয়া প্ল্যানার্সরা সমন্বয় করেন। বিজ্ঞাপন নির্মাণ ছাড়াও বিজ্ঞাপনী সংস্থার আরও অনেক ধরনের কাজ রয়েছে। যেমন- ক্রেতাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করা, ইভেন্ট করা ইত্যাদি।

ক্রিয়েটিভিটির সাথে চাই স্ট্র্যাটেজি

নাজিম ফারহান বলেন,

Creativity is an art but creativity with strategy is advertisement.

আমরা যা ‘অবজার্ভ’ করি সঠিকভাবে উপস্থাপন বা প্রকাশ করার আইডিয়া জেনারেট করাই হলো ক্রিয়েটিভিটি। আমাদের কাজের প্রত্যেকটি ধাপেই ক্রিয়েটিভির প্রয়োজন রয়েছে। তিনি অ্যাডকমের নির্মিত একটি বিজ্ঞাপন চিত্রের উদারহণ টেনে বিষয়টি সহজভাবে বুঝানোর চেষ্টা করেন। কাপড় ধোয়ার পাউডার ‘সার্ফ এক্সেল’ এর বিজ্ঞাপন তৈরি করতে গিয়ে তার সহকর্মীরা ভাবেন, মায়েদের সব সময় সন্তানের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা থাকে। বাচ্চারা যাই করে বেড়াক না কেন দিনশেষে সন্তানের সফলতা মায়েদের একমাত্র চাওয়া। এই আইডিয়াটিকে মাথায় রেখে তারা বিজ্ঞাপনের স্ক্রিপ্ট লিখলেন- ‘দাগ থেকে যদি দারুণ কিছু হয়, তবে দাগই ভালো।’ তার মানে কাপড় ময়লা হচ্ছে হোক, বাচ্চারা তো কিছু শিখছে। এই প্রকাশটাই ক্রিয়েটিভিটি।

অ্যাডভার্টাইজ মানে কমিউনিকেশন

Advertisement is communication with consumers. নাজিম ফারহান বলেন, বিজ্ঞাপন মূলত ক্রেতার সাথে যোগাযোগের মাধ্যম। বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ব্র্যান্ড ক্রেতাকে কী ধরনের পণ্য দিতে চায়, কেমন সেবা দিতে চায় তা বুঝাতে চেষ্টা করে। আর ক্রেতাও বুঝতে পারে ব্র্যান্ড আমাকে কী পণ্য, কেমন পণ্য দিতে চায়। এই বিষয়টি মূলত একটি কমিউনিকেশন। কোম্পানি ও ক্রেতার মধ্যে যখন ভালো কমিউনিকেশন বা আন্ডার্স্ট্যান্ডিং তৈরি হবে তখন পণ্যটির ব্র্যান্ড ভ্যালু ও পার্সোনালিটি তৈরি হবে। বিজ্ঞাপনী সংস্থা ক্রেতার কাছে ব্র্যান্ডের মেসেজ ও পার্সোনালিটি তুলে ধরার কাজটি করে থাকে।

‘পি আর’ কেন গুরুত্বপূর্ণ?

নাজিম ফারহান বলেন পণ্যের প্রচারের জন্য ‘পি আর’ বা ‘পাবলিক রিলেশন’ অন্যতম বড় মাধ্যম। পেইড বিজ্ঞাপনের চাইতে ‘পি আর’ অধিক কার্যকরী। বিজ্ঞাপন চিত্রে পণ্য সম্পর্কে যাই বলা হোক না কেন, বাস্তবে মানুষ যখন একে অন্যকে কোনো পণ্য সাজেস্ট করেন তখন এটি অধিক মূল্য বহন করে।

বিজ্ঞাপনের চাহিদা বাড়ছে

বিজ্ঞাপনী সংস্থায় দিন দিন কাজের চাপ ও বিজ্ঞাপন নির্মাণের চাহিদা বাড়ছে। নাজিম ফারহান বলেন, একসময় আমরা কোনো একটি ব্র্যান্ডের জন্য সারা বছরে একটি মাত্র বিজ্ঞাপন বানাতাম। সময়ের সাথে সাথে একসময় প্রতি মাসে একটি করে বিজ্ঞাপন বানাতে হত। কিন্তু এখন এমন একটি সময় এসে দাঁড়িয়েছে একটি ব্র্যান্ডের জন্য প্রতি দিনই নতুন নতুন বিজ্ঞাপন তৈরি করতে হচ্ছে। কারণ- বিজ্ঞাপন প্রচারের মাধ্যম বেড়েছে। অনলাইন এখন বিজ্ঞাপন সবচেয়ে বড় মাধ্যম।

বিজ্ঞাপনী সংস্থায় ক্যারিয়ার

নাজিম ফারহান বলেন, বিজ্ঞাপনী সংস্থা একটি ওপেন ক্যারিয়ার ফিল্ড। নানা স্টাডি ফিল্ড থেকে শিক্ষার্থীরা এখানে কাজ করতে পারেন। অনেকে ভেবে থাকেন বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কাজের ক্ষেত্রে বিবিএ ডিগ্রি থাকতে হবে। এটি সঠিক নয়। আমরা সব ফিল্ডের শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করে থাকি।

যে গুণগুলো দরকার

বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কাজ করতে চাইলে কিছু গুণ অবশ্যই থাকতে হবে। নাজিম ফারহান কয়েকটি গুণের কথা নির্দিষ্ট করে বলেছেন। সেগুলো হলো-

  • ব্র্যান্ড ও কনজ্যুমারের মনস্তাত্ত্বিক প্রেক্ষাপট বুঝার ক্ষমতা থাকতে হবে। সহজভাবে বললে আন্ডার্স্ট্যান্ডিং ক্ষমতা ভালো থাকতে হবে।
  • প্যাশেন্স ও এমপ্যাথি থাকতে হবে। আইডিয়াকে সুন্দর করে প্রকাশ করার জন্য আন্তরিক থাকতে হবে।

বই কেন পড়তে হবে?

নাজিম ফারহান বলেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে মানুষ বই পড়া কমিয়ে দিয়েছে। বই পড়া ছাড়া ক্রিয়েটিভিটি চর্চা করা সম্ভব নয়। বিজ্ঞাপনী সংস্থায় ক্রিয়েটিভি ছাড়া কোনোভাবে কাজ করার সুযোগ নেই। যারা বিজ্ঞাপনী সংস্থায় সফল ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন দেখেন তাদেরকে নিয়মিত বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। কর্মী নিয়োগের সময় আমরা প্রার্থী গতানুগতিকের বাইরে পৃথিবী সম্পর্কে কতটুকু জানে, তার চিন্তা-ভাবনার জগত কতটুকু শক্তিশালী এই দিকগুলো খেয়াল করি। তিনি বলেন, বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কাজ করা মানে ভালো করে চুরি করতে জানা। কেউ যখন অনেক লেখকের বই পড়বে তখন সে সব লেখকের চিন্তা-ভাবনাকে একত্রিত করে নতুন কিছু তৈরি করতে পারবে, যা নতুন নতুন আইডিয়া তৈরি করতে কাজে আসবে।

নাজিম ফারহান বলেন, বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কাজ করতে গেলে ভিন্নধর্মী চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়। বিজ্ঞাপনী সংস্থা প্রতিদিন একাধিক ভিন্ন ভিন্ন ব্র্যান্ড ও তাদের পণ্য নিয়ে কাজ করে। এজন্য আমাদেরকে যেমন শ্যাম্পুর মার্কেট সম্পর্কে জানতে হয় তেমনি জুতার মার্কেটটাও বুঝতে হয়। আমাদের শেখার কোনো শেষ নেই। আমাদেরকে প্রতিনিয়ত শিখতে হয়। আমাদের সময়ের প্রতি দায়বদ্ধ থাকতে হয়। আমরা যদি সঠিক সময়ে পণ্যের বিজ্ঞাপন তৈরি করতে না পারি তাহলে পণ্যটি মার্কেটে আসতে দেরি হবে এবং আমাদের ক্লায়েন্ট ক্ষতিগ্রস্থ হবে। এসব বিষয় মাথায় রেখেই বিজ্ঞাপনী সংস্থাকে কাজ করতে হয়।

বিজ্ঞাপন সংক্রান্ত বই দেখতে

 

rokomari

rokomari

Rokomari.com is now one of the leading e-commerce organizations in Bangladesh. It is indeed the biggest online bookshop or bookstore in Bangladesh that helps you save time and money.

Leave a Comment

Rokomari-blog-Logo.png
Join our mailing list and get the latest updates
Loading