বর্তমান সময়ে সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের গুরুত্ব এবং ভবিষ্যৎ

4

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন বুকস্টোর রকমারি ডট কম এর আয়োজিত সপ্তাহব্যাপী ক্যারিয়ার কার্নিভালের অন্যতম আয়োজন ক্যারিয়ার ক্যাফে লাইভের বারোতম পর্বে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিকাশ, বাংলাদেশের লিডিং মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস এর হেড অফ সাপ্লাই চেইন মোঃ রাশেদুল আলম, যিনি ২০১৯ সালে Supply Chain Professional of The Year অর্জন করেন। পর্বটির সঞ্চালনায় ছিলেন রবির ভাইস প্রেসিডেন্ট জাভেদ পারভেজ। আলোচনায় মোঃ রাশেদুল আলম সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি তরুণ প্রজন্মের জন্য বেশকিছু উপদেশও দিয়েছেন।

সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট কী?

সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট নিয়ে আলোচনা করতে গেলে প্রথমেই জানতে হবে “সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট” আসলে কী?একটি প্রোডাক্ট বা সার্ভিস নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ায় কয়েকটি ধাপ পার করে কাস্টমারের কাছে পৌঁছায়। আর এই প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের উৎপাদন থেকে শুরু করে তা কাস্টমারের কাছে পৌঁছানোর জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়াই হল সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট। অর্থাৎ, সাপ্লাই চেইনের সার্বিক তত্ত্বাবধান হচ্ছে সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট।

সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের ব্যাপ্তি কতখানি?   

বর্তমান বিশ্বে কোনো কোম্পানির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট। একে যে কোনো ব্যবসার মেরুদণ্ড বলা হয়ে থাকে। কোন কোম্পানির কাঁচামাল কেনা থেকে শুরু করে প্রোডাক্ট তৈরি করে তা ক্রেতার হাতে পৌঁছানো পর্যন্ত পুরো কাজটাকেই বলে সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট। একটা কোম্পানির খরচের যদি ৩০%-৩৫% অন্যান্য ডিপার্টমেন্টের হয়, বাকি ৬৫%-৭০% হল সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের। কোন কোম্পানির মূল লভ্যাংশ আসে এর মাধ্যমে। কাঁচামালের খরচ, উৎপাদন খরচ, পরিবহন খরচ যত কমানো যাবে প্রোডাক্ট এর দাম তত কমে যাবে, আর এর চাহিদাও বেড়ে যাবে। আর এইসবই নির্ভর করে সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের উপর। প্রতিষ্ঠানের সফলতা, প্রসার সবকিছুই এই সাপ্লাই চেইনের উপর নির্ভরশীল। একটা প্রোডাক্ট কিভাবে প্যাকেজিং হয়ে কত কম সময়ের মধ্যে ক্রেতার কাছে পৌঁছাচ্ছে তার সবই সাপ্লাই চেইনের অংশ।

সাপ্লাই চেইনের ক্ষেত্রে টাইম ম্যানেজমেন্ট কতটা গুরুত্বপূর্ণ?

যেকোনো ক্ষেত্রেই সময় ম্যানেজমেন্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ। আর সেখানে সাপ্লাই চেইনের মূল কথা হল, “কম খরচে কম সময়ে বেশি কাজ।” এ থেকে ধারণাই করা যাচ্ছে যে সাপ্লাই চেইনের ক্ষেত্রে সময় কতটা প্রভাব রাখে। একটা বাস্তব উদাহরণের সাহায্যে বিষয়টি আরো ভালোভাবে বোঝা যাবে।

বেশ কয়েক বছর পূর্বে যখন মোবাইল ফোনে টিএনটি ইনকামিং ফ্রি ছিলো না, তখন তৎকালীন একটেল (বর্তমান এয়ারটেল) বাংলাদেশে প্রথম টিএনটি ইনকামিং ফ্রি করে দেওয়ার একটি প্রোজেক্ট করে। কিন্তু সময় ম্যানেজমেন্টের অভাবে তারা কাঙ্ক্ষিত দিনে প্রোজেক্টটি জনগণের সামনে উন্মোচন করতে পারেনি। এরমধ্যে গ্রামীণফোন বাংলাদেশে প্রথম টিএনটি ইনকামিং ফ্রি করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে দেয়। দেখা গেছে, এই অফারটি পেতে অনেকে চড়া মূল্য দিয়েও গ্রামীণফোনের সিম কিনেছেন।

একটা দিন। শুধুমাত্র একটা দিনের মধ্যেই একটেলের সব লাভ গ্রামীণফোন করে নিয়েছে। কিন্তু একটেল যদি সময় ম্যানেজমেন্ট ঠিক রেখে নির্ধারিত দিনেই প্রোজেক্টটির ঘোষণা দিয়ে দিতো, তাহলে পরিস্থিতি অন্যরকমও হতে পারতো।

সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টে আসতে কী কী স্কিল প্রয়োজন?

আশার কথা হল, সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টে আসতে হলে কোন নির্দিষ্ট ব্যাকগ্রাউন্ড লাগে না। কেউ ইঞ্জিনিয়ারিং পড়েও এখানে আসতে পারে, আবার কেউ চারুকলা থেকে পড়েও এখানে আসতে পারে। আর বিজনেসের শিক্ষার্থীরা তো পারবেই। এখানে ব্যাকগ্রাউন্ড কোনো গুরুত্ব না রাখলেও কমিউনিকেশন স্কিল বেশ গুরুত্ব রাখে। আপনার যদি কমিউনিকেশন স্কিল না থাকে, তাহলে আপনি আপনার বক্তব্য অন্যের কাছে সঠিকভাবে পৌঁছাতে পারবেন না, অন্যকে প্রভাবিত করতে পারবেন না। পাশাপাশি আপনার বিশ্লেষণাত্মক দক্ষতা থাকতে হবে। আপনি যদি বিশ্লেষণাত্মক না হন, তাহলে আপনি যাচাই করতে পারবেন না আপনার জন্য সঠিক পথ কোনটা হবে কিংবা আপনার প্রতিপক্ষ কী ধাপ ফেলতে যাচ্ছে। তাই আপনি যদি চান সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টে আসতে, তাহলে যত দ্রুত সম্ভব কমিউনিকেশন স্কিল এবং বিশ্লেষণাত্মক দক্ষতাতে নিজেকে দক্ষ করে তুলুন।

নেগোসিয়েশন স্কিলও সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কারণ সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টে জনগণের সাথে সমঝোতার মাধ্যমে প্রোডাক্ট বিক্রি করা হয়। এই সমঝোতার সময় শুধুমাত্র নিজের সুবিধার কথা না ভেবে জনগণের সুবিধার কথাও ভাবতে হবে। তাই এমনভাবে নেগোশিয়েট করতে হবে যাতে উভয়পক্ষের লাভ হয়। এছাড়া চ্যালেঞ্জ নেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। কারণ- নিত্য-নতুন সমস্যা এখানে আসবেই, যা চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে মোকাবেলা করতে হবে।

মোঃ রাশেদুল আলমের মতে, কেউ যদি বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকা অবস্থায় প্রেজেন্টেশন স্কিল, কমিউনিকেশন স্কিল ভালোভাবে আয়ত্ত্ব করে থাকে, তবে তা তার জন্য একটি বোনাস পয়েন্ট হিসেবে যুক্ত হবে। কারণ-যখন কেউ সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টে নতুন আসে, তখন তার জন্য সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের খুঁটিনাটি জানা যত না গুরুত্বপূর্ণ, তার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল এই স্কিলগুলো থাকা। আর এই স্কিলগুলো থাকলে তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হবে না।

বাংলাদেশে কোথায় সাপ্লাই চেইনের কোর্স করা যাবে?

বিভিন্ন অর্গানাইজেশন সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের উপর কোর্স করিয়ে থাকে। “বাংলাদেশ সাপ্লাই চেইন কাউন্সিল, বিডিজবস” সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের উপর এক-দুই দিনের বেসিক কোর্স করায়। কোর্সেরা, উদেমির মতো অনলাইন এডুকেশন প্ল্যাটফর্মেও অসংখ্য কোর্স রয়েছে। এছাড়া সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট নিয়ে আরো বিশদভাবে জানার জন্য গুগল তো আছেই।

সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের ইন্টারভিউয়ে কেমন প্রশ্ন হতে পারে?

সাপ্লাই চেইন নিয়ে যদি কোন প্রশ্ন করা হয়, তখন শুধু থিওরিটিকাল কথা বললে হবে না। অবশ্যই বুঝিয়ে বলতে হবে একটা কোম্পানির জন্য সাপ্লাই চেইন কেন গুরুত্বপূর্ণ, কিভাবে তা কোম্পানিকে লাভবান করবে, কখন কিভাবে তা ব্যবহার করতে হবে। এখানে মূলত নিজের ভাষায় চিন্তাধারা তুলে ধরতে হবে যে সাপ্লাই চেইন এর মাধ্যমে আপনি কোম্পানিকে কিভাবে লাভবান করতে চাচ্ছেন।

করোনা মহামারীর ফলে সাপ্লাই চেইনের উপর কোন প্রভাব পড়েছে কিনা?

আমরা সবাই জানি, করোনা মহামারী আমাদের জীবনযাত্রাকে স্থবির করে দিয়েছে। যদিও এখন জীবনযাত্রা আগের তুলনায় কিছুটা স্বাভাবিক হয়েছে। সবকিছু থেমে থাকলেও সাপ্লাই চেইন কিন্তু সচল ছিল। যার ফলে ই-কমার্স ব্যবসা পূর্বের তুলনায় এই করোনাকালীন সময়ে বহুগুণে বেড়ে গিয়েছে। বলা চলে, করোনা সাপ্লাই চেইনের ক্ষেত্রে অনেকটা ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

স্টার্টআপের ক্ষেত্রে সাপ্লাই চেইন

বর্তমান তরুণ প্রজন্মের মধ্যে উদ্যোক্তা হওয়ার প্রবণতা অনেক বেশি। এজন্য আজকাল ই-কমার্স এবং এফ-কমার্স ব্যবসা অনেক বেড়ে গিয়েছে। প্রতিযোগিতার বাজারে নিজের জায়গা করে নিতে হলে অবশ্যই প্রোডাক্টের মধ্যে আকর্ষণীয় কিছু থাকতে হবে। প্রোডাক্টটি অনলাইনে কিভাবে উপস্থাপন করা হচ্ছে সেদিকেও বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে। কারণ প্রোডাক্টের বিশেষত্ব না থাকলে তা কাস্টমারের নজর কাড়তে পারবে না। আর তাছাড়া আপনার প্রোডাক্ট যদি অন্যদের তুলনায় আলাদা হয়, তবে আপনার এক কাস্টমার আরো দশজনকে বলবে। ফলে আপনার মার্কেটিং হবে। আপনি যত কম সময়ে আকর্ষণীয় প্যাকেজিং এর মাধ্যমে প্রোডাক্ট কাস্টমারের কাছে পৌঁছে দিবেন, বাজারে আপনার স্থান তত পাকাপোক্ত হবে। এভাবেই স্টার্ট-আপের ক্ষেত্রে সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট কাজ করে যাচ্ছে।

সাপ্লাই চেইনের ভবিষ্যৎ কী হবে?

মোঃ রাশেদুল আলমের মতে ভবিষ্যতে সাপ্লাই চেইনের ধারে-কাছে অন্য কোনো ডিপার্টমেন্ট থাকতে পারবে না। কারণ- এখন মানুষ কম সময়ে বেশি কাজে বিশ্বাসী। মানুষ আজকাল অনলাইন কেনাকাটার উপর বেশি ঝুঁকে পড়েছে। কারণ- অনলাইনেই মানুষ একটা প্রোডাক্টের জন্য হরেক রকম বিকল্প যখন পাচ্ছে, তখন সে কষ্ট করে দোকানে কেন যাবে? দোকানে যাওয়ার সময়টুকুতে সে অন্য কাজে মনোনিবেশ করতে পারছে।

বলা যায়, ভবিষ্যতে ফিজিক্যাল মার্কেটিং বলতে কিছু থাকবে না। সবকিছুই ই-কমার্সের আওতায় চলে আসবে। আর ই-কমার্স মানেই হল সাপ্লাই চেইন। মোঃ রাশেদুল আলমের মতে ভবিষ্যৎ মানেই সাপ্লাই চেইন।

সাপ্লাই চেইন বিষয়ক কিছু বইঃ

মোঃ রাশেদুল আলমের মতে সাপ্লাই চেইন নিয়ে পড়ে শেষ করা যাবেনা। তবুও তিনি তরুণ প্রজন্মের কথা মাথায় রেখে তিনটি বইয়ের কথা বলেছেন। “Managing supply chain operations, Single point of failure: The 10 essential laws of supply chain risk management, ” – এই বইগুলো তার ব্যক্তিগত পছন্দের।

সাপ্লাই চেইন সংক্রান্ত বই সংগ্রহ করতে

rokomari

rokomari

Rokomari.com is now one of the leading e-commerce organizations in Bangladesh. It is indeed the biggest online bookshop or bookstore in Bangladesh that helps you save time and money.

Leave a Comment

You May Also Like This Article

Rokomari-blog-Logo.png
Join our mailing list and get the latest updates
Loading