আধুনিক গরু-রচনাসমগ্র ও ছাগলের পিএইচডি ডিগ্রি!

পিএইচডি কী, কোথা থেকে এলো পিএইচডি শব্দ, কাদের পিএইচডি প্রয়োজন?
adhunik gorur rochona somogro

ইংরেজি ‘ডক্টর’ শব্দটি মূলত ল্যাটিন ভাষার। এর অর্থ হলাে শিক্ষক  বা প্রশিক্ষক। মধ্যযুগের দিকে ইউরােপে যারা ল্যাটিন ভাষা পড়াতেন, তাদের একটি লাইসেন্স লাগতাে, যার নাম ছিলাে ‘Licentia Docendi’, এবং এই লাইসেন্টিয়া ডােসেন্ডির ইংরেজি অনুবাদ হলাে ‘License to Teach’, অর্থাৎ শেখানাের লাইসেন্স। এ লাইসেন্সটিকে ডাকা হতাে ‘Doctoratus’, যার ইংরেজি হলাে ‘Doctorate’, এবং এ লাইসেন্স যার থাকতাে, তাকেই বলা হতাে ডক্টর, আর ডক্টর মানে হলাে শিক্ষক!

অতীতে কাদের ডক্টর বলা হত? 

তখনকার দিনে ডক্টর ছিলেন চার্চের মােল্লারা, যারা বাইবেল পড়াতেন ও ব্যাখ্যা করতেন। চার্চের অনুমতি ছাড়া কেউ ‘ডক্টরেট ডিগ্রি বা ‘শেখানাের লাইসেন্স পেতেন না। কিন্তু খ্রিস্টানদের পােপ ১২১৩ সালে ঘােষণা করলেন যে, আজ থেকে চার্চের পাশাপাশি প্যারিস  বিশ্ববিদ্যালয়ও শেখানাের লাইসেন্স বা ডক্টরেট ডিগ্রি দিতে পারবে। এই ঘােষণার আগেও প্যারিস বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাথলিক চার্চের অনুমতি নিয়ে কিছু ছাত্রকে ডক্টরেট ডিগ্রি দিতাে। কিথ এলান তাঁর ‘Changing doctoral degrees: an international perspective’ বইয়ে উল্লেখ করেছেন যে, পৃথিবীর প্রথম ডক্টরেট ডিগ্রিটি দেয়া হয় ১১৫০ সালের দিকে, প্যারিস বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রকে।

মাদ্রাসা থেকে দেয়া ডক্টরেট 

তখনকার দিনে খ্রিস্টানদের এই ডক্টরেট ডিগ্রির মতাে আরেকটি ডক্টরেট ডিগ্রি মুসলিমদেরও ছিলাে। এটির নাম ছিলাে ইযাজাহ। ডক্টরেট দেয়া হতাে খ্রিস্টানদের চার্চ থেকে, আর ইযাজাহ দেয়া হতাে মুসলিমদের মাদ্রাসা থেকে। কিন্তু দুটিরই অর্থ ছিলাে এক: শেখানাের লাইসেন্স। যার ডক্টরেট ও ইযাজাহ আছে, তিনি শিক্ষকতা করতে পারবেন। তবে অধ্যাপক জর্জ মাকদাইসির মতে, ডক্টরেট ডিগ্রির প্রচলন ঘটেছে মুলালমদের ইযাজাহ ডিগ্রির অনুকরণে। এ কথা তিনি তাঁর ‘Scholasticism and Humanism in Classical Islam and the Christian West’ প্রবন্ধে উল্লেখ করেছেন। মাকদাইসি ছিলেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়, মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়, ও পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক।

Philosophy কী? 

সতেরাে শতকের দিকে জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়গুলাে এই শিক্ষকতার লাইসেন্সের একটি নাম দিলাে ‘Doctorate of Philosophy’ বা PhD (Philosophiae Doctor), এবং বাংলাদেশের অনেকেই এই ‘Philosophy’ শব্দের অর্থ করে থাকে দর্শন! কিন্তু এই ফিলোসফি সেই ফিলােসােফি নয়। ডক্টরেট অব ফিলােসােফিতে যে-ফিলােসফি শব্দটি আছে, তা মূলত গ্রিক ভাষায় শব্দটির মূল অর্থকে নির্দেশ করে। অর্থটি হলাে: Love of Wisdom বা জ্ঞানের প্রতি মােহ। অর্থবিত্ত, ক্ষমতা। পদ-পদবি নয়, যে-ব্যক্তির জ্ঞানের প্রতি মােহ জন্মেছে, সে-ব্যক্তিই পিএইচডি!

ফিলােসােফি শব্দটি ব্যবহারের পেছনে অন্য কারণও আছে। ইউরােপে তখন ইতিহাস, গণিত, দর্শন, সামাজিক বিজ্ঞান ও প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের সকল বিষয়কে একত্রে ফিলােসােফি বলা হতাে, এবং এখন যেটিকে ‘কলা অনুষদ’ বা ‘ফ্যাকাল্টি অব লিবারেল আর্ট’ বলা হয়, সেটি মূলত ‘ফ্যাকাল্টি অব ফিলােসােফি’ নামে পরিচিত ছিলাে। এ জন্য কেউ দর্শনে ডক্টরেট না করলেও তার ডক্টরেট ডিগ্রিকে ‘ডক্টরেট অব ফিলােসােফি’ বলা হতাে। সংক্ষেপে তারা এটিকে লিখতাে: Dr. Phil.

তবে কিছু কিছু জার্মান বিশ্ববিদ্যালয় পরবর্তীতে প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের ডক্টরেটগুলিকে দর্শনের ডক্টরেট থেকে আলাদা করার জন্য ‘Doctor Rerum Naturalium’ বা ‘Doctor of Natural Sciences’ শব্দগুচ্ছটির ব্যবহার শুরু করে। এটিকে সংক্ষেপে লেখা হয়: Dr. rer. nat., এবং একইভাবে, কেউ সামাজিক বিজ্ঞান বা রাষ্ট্রবিজ্ঞানে ডক্টরেট করলে লেখা হয় Dr. rer. pol., আইন বিষয়ে করলে লেখা হয় Dr. jur, ইত্যাদি। সুতরাং জামানিতে যা Dr. Phil. বা Dr. rer. nat. বা Dr. jur, ইংরেজি বিশ্বে তা PhD বা DPhil; বিষয় যা-ই হােক না কেন।

প্রফেশনাল ডক্টরেট ডিগ্রি 

উনিশ শতকের দিকে আমেরিকায় আরেক ধরনের ডক্টরেট ডিগ্রির প্রচলন ঘটে। এগুলােকে বলা হয় পেশাগত বা প্রফেশােনাল বা ভােকেশােনাল ডক্টরেট ডিগ্রি। এদের একটি হলাে ‘Doctor of Medicine’, যার ল্যাটিন নাম ‘Medicinae Doctor’, সংক্ষেপে সংক্ষেপে লেখা হয় M.D., এবং আরেকটি হলাে ‘Juris Doctor’ বা J.D.

এমডি হলাে চিকিৎসা বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি, যা আমেরিকানরা ধার করেছে মূলত স্কটল্যান্ড থেকে, এবং জেডি হলাে আইন বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি। এ ডিগ্রিগুলাে আমাদের এমবিবিএস ও এলএলবির সমান, কিন্তু দুটোই ডক্টরেট ডিগ্রি।

পিএইচডি করার উদ্দেশ্য কি শুধুই ডিগ্রি নেয়া? 

এই অনেক ঘরানার ডক্টরেট ডিগ্রির একটি হলাে গবেষণামুখী ডক্টরেট রিসার্চ-ডক্টরেট, এবং পিএইচডি বলতে গড়-মানুষেরা এখন এটিকেই বুঝে থাকে। গড়-মানুষদের ধারণা, এটিই একমাত্র পিএইচডি ডিগ্রি, এবং এ ডিগ্রি যার আছে তিনি অমরত্ব লাভ করেছেন। সাংবাদিক ও প্রােপাগান্ডিস্ট ডক্টরেটদের অনেক অবদানের একটি হলাে এটি। প্রবন্ধটির শিরােনামে আমি যে-ছাগলদের কথা বলেছি, সে-ছাগলেরা পিএইচডির ধারণা তাদের থেকেই রপ্ত করেছে, এবং এ ডিগ্রি অর্জনে তারা ঝাঁপিয়ে পড়েছে সর্বশক্তি নিয়ে।

কে পিএইচডি পাবে ও কে পিএইচডি দেবে, এ নিয়ে পৃথিবীতে খুব বেশি আলােচনা হয়নি। এ প্রসঙ্গে আমি একটু ভিটগেনস্টাইনের কথা বলতে চাই। ভিটগেনস্টাইনের সুপারভিশনে ক্যাম্বব্রিজে একটি ছাত্র পিএইচডি করছিলাে। তার থিসিসের বিষয়বস্তু ছিলাে— লিগ অব নেশনস বা প্রাক্তন জাতিসংঘ কেন ব্যর্থ হয়েছিলাে। ছাত্রটি একদিন ভিটগেনস্টাইনকে জানালাে— এ বিষয়ে আসলে আমার মৌলিকভাবে কিছু বলার নেই। আমি যা থিসিসে লিখবাে, তা ইতােমধ্যে অনেকেই বলে গেছেন। পিএইচডির খাতিরে হয়তাে একটি মােটা থিসিস লেখা হবে, কিন্তু এটি কোনাে জ্ঞান উৎপাদন করবে না। শুধু লেখার জন্যই এটি লেখা হবে। ভিটগেনস্টাইন বললেন, ‘থিসিস লেখার দরকার নেই, তােমার যে এ উপলব্ধিটুকু হয়েছে, শুধু এ জন্যই তােমার একটি পিএইচডি পাওয়া দরকার। আমি তােমাকে পিএইচডি ডিগ্রি দেবাে।’

আধুনিক গরু-রচনাসমগ্র
BUY NOW

পৃথিবীর অধিকাংশ পিএইচডিই এখন কেবল ডিগ্রি নেয়ার উদ্দেশ্যে করা। জ্ঞানের কোনাে শাখায় এসব ডিগ্রির তেমন কোনাে গুরুত্বপূর্ণ অবদান নেই। এগুলাের প্রায় সবই অন্যের কাজের পুনরুক্তি ও অনাবশ্যক এক্সটেনশন। এরকম পিএইচডি এক লাখ উৎপাদিত হলেও সভ্যতার কোনাে উপকার হয় না। এখানে আমি আরেকটি বিষয় উল্লেখ করতে চাই। ভিটগেনস্টাইন বিএ পড়ার সময় যে-থিসিসটি লিখেছিলেন, সে-থিসিসটি বই আকারে বেরিয়েছিলাে। সে-বইটিকেই ক্যাম্বব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় তাঁর পিএইচডি থিসিস হিশেবে বিবেচনা করেছিলাে, এবং বার্ট্রান্ড রাসেলের সুপারিশে তাঁকে পিএইচডি ডিগ্রি দেয়া হয়েছিলাে। বাংলাদেশে ছাত্ররা এখন যে সাজিয়ে-গুছিয়ে থিসিস লিখে ও প্রিন্ট করে, তা পল ডিরাক দেখলে নিজের থিসিসটিকে তিনি খালে ফেলে দিতেন।

থিসিস নিয়ে যত গোলমাল 

বহু পিএইচডি-প্রত্যাশী এখন থিসিসের বাঁধাই ও মলাট দিয়ে বিষয়বস্তু ঢেকে রাখতে চান। তারা জানেন যে, এটির ভেতরে কিছু নেই। এটি কিছু শূন্যের সমাহার। এর পাতায় পাতায় ফুটনােট। এর পাদটীকা অর্থাৎ পায়ে টীকা আছে, কিন্তু কপালে কোনাে টীকা নেই। এটি কোনো জ্ঞান উৎপাদন করেনি, এটি পড়লে মনে কোনাে আলাের বিচ্ছুরণ ঘটবে না। এটি সবজি ক্ষেতে গজানাে বিরক্তিকর ঘাস; যা মাঝে মাঝে ছাগল এসে খেয়ে যায়। তাই এটিকে ঢেকে রাখতে হবে সুন্দর মলাট দিয়ে, বাঁধাই করতে হবে উৎকৃষ্ট কারিগর দিয়ে। মানের যখন অবনমন ঘটে, সৌন্দর্য তখন মুখ্য হয়ে ওঠে। মানহীনতা ঢাকতে পিএইচডি শ্রমিকেরা আশ্রয় নিচ্ছেন ভালাে মানের কাগজ, ভালাে মানের প্রিন্ট, ও ভালাে মানের মলাটের। এ পরিশ্রমটুকর জন্যই তাদের পিএইচডি দেয়া হচ্ছে।

এটি যে মুদ্রিত আবর্জনা, এটি যে কেরােসিনের সলতে, তা ওই পিএইচডি-প্রত্যাশী ও তার সুপারভাইজরও জানেন। তারপরও এটিকে তারা প্রকাশ করেন। এটিই তাদের জীবিকা। সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা ময়লা সাফ করে জীবিকা নির্বাহ করেন, আর এই পিএইচডি শিল্পীরা ময়লা উৎপাদন করে রুটির সংস্থান করেন। সম্প্রতি আফ্রিকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, বয়স ও ক্ষমতায় তার চেয়েও বড়াে এক বুড়াে ছাত্রকে পিএইচডি দান করে রুটি হাতিয়ে নিয়েছেন। ছাত্রটিও খুশি। কারণ, তার কোনাে কিছুর অভাব ছিলাে না; শুধু নামের আগে একটি ড-এ ডট সে লাগাতে পারছিলাে না। তার এ অভাব ঘুচে গেছে।

থিসিস চুরি! 

চুরির অপবাদ একসময় দখলে ছিলাে গ্রামের সিঁধেল চোরদের ও চোরদের অতীত গৌরব এখন ডক্টরেটদের দখলে। সম্প্রতি একটি বিশ্ববিদ্যালয় এমন দুই চোরকে গৌরবজনক শাস্তি প্রদান করেছে। চুরি করেছিলাে এক বিখ্যাত মনীষীর লেখা। অভিনয় করতে করতে তাদের এমন উন্নতি হয়েছে যে, তারা এখন ফুকো, রাসেল, রুশাে, বার্গসন, হেগেল, কান্ট, হিউম, হবস, ও সাঁত্রের চরিত্রে অভিনয় করছে। এ প্রতিভা নিঃসন্দেহে ঈর্ষণীয়। কিন্তু শাস্তি যাদের প্রাপ্য ছিলাে, তারা না পেয়ে পেলাে আহাম্মকেরা। আহাম্মক দিয়ে যে গবেষণা হয় না, তা বিশ্ববিদ্যালয়গুলি বুঝতে রাজি নয়।

বুলবুল কবির নামের একজনকে মনে পড়ছে, তিনি ভােলাগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ বিভাগের শিক্ষক। ২০১৫ সালে তিনি ডক্টরেট ডিগ্রি পান কারণ খুব শ্রমসাধ্য একটি পিএইচডি থিসিস তিনি লিখেছিলেন। (কোনাে কাজের ৯৮ শতাংশ নকল করা সত্যিই শ্রমসাধ্য ব্যাপার)। মুশকিল হলাে, থিসিসটি একদিন সুইডেনের গােটেনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জোনাস নিলসনের নজরে আসে। নিলসন দেখতে পান, বুলবুল কবির নামের খাঁটি বাঙালি শিল্পীটি তার একটি গুরুত্বপূর্ণ গবেষণা প্রায় হুবহু মেরে দিয়েছেন, এবং ভাগিয়ে নিয়েছেন পিএইচডি! ক্ষুব্ধ নিলসন ভােলাগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য জনাব সােবহানাল্লাহকে চিঠি লিখে এর বিচার চান।

বিচারক হিশেবে উপাচার্য সােবহানাল্লাহর সুখ্যাতি কে না জানে? বুলবুল কবিরকে একটি পত্রিকা জিগ্যেস করেছিলাে, ‘কেন আপনি এমনটি করলেন?’ বুলবুল কবির জবাব দিয়েছিলেন, ‘কোনাে গণ্ডগােল হয়ে থাকলে তার দায়ভার আমার সুপারভাইজর ও ভােলাগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের; এ ব্যাপারে আমার কিছু বলার নেই।’ পরে একদিন ঐ পত্রিকা ভােলাগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে যায়, এবং বুলবুল কবিরের থিসিসটি খুঁজে বের করে। তারা দেখতে পায়, কে বা কারা যেন বুলবুল কবিরের শিল্পকর্মটিতে বেশ ঘষামাজা ও সংযােজন-বিয়ােজন করেছে! গ্রন্থাগারিক অধ্যাপক মাে. জয়নব আলির বক্তব্য ছিলাে এরকম: “অতি সম্প্রতি ফাইজুল মােহাম্মদ বুলবুল কবীরের পিএইচডি অভিসন্দর্ভে কিছু ঘষামাজা আমাদের নজরে এসেছে। চৌর্যবৃত্তির অভিযােগ ওঠায় কেউ অবৈধ প্রক্রিয়ায় এই কাজটি করেছেন। ঘটনার তদন্ত প্রয়ােজন।”

বুলবুল কবিরের সুপারভাইজর ছিলেন অধ্যাপক বদিউস সামাদ আবু। আবু সাহেব কি তার দায়িত্ব ঠিকমতাে পালন করেছিলেন? তিনি কি সহযােগী অধ্যাপক ও সহকারী প্রক্টর বুলবুল কবিরকে জানিয়েছিলেন কাকে বলে গবেষণা? সম্ভবত না। গবেষণা তাদের মুখ্য বিষয়বস্তু ছিলাে বলে মনে হয় না। তাদের লক্ষ্য ছিলাে- কীভাবে কয়েক হাজার শব্দ এক করে কিছু বাক্য লেখা যায়, এবং তা ছাপিয়ে ভাগিয়ে নেয়া যায় পিএইচডি। বুলবুল কবির এ কাজে দারুণ সফলতা দেখিয়েছেন, এবং বিশ্ববিদ্যালয়টি গবেষণাকর্মে কতােটা ব্যর্থ, তাও দেখিয়ে দিয়ে গেছেন।

পিএইচডি করার নানা কারণ

পিএইচডির সাথে মানুষ হওয়ার কোনাে সম্পর্ক নেই। বরং কেউ কেউ অপ্রয়োজনীয়ভাবে পিএইচডি নিতে গিয়ে ছাগলে পরিণত হতে পারেন। আমাদের মনে রাখতে হবে, ছাগল শব্দটি এ অঞ্চলে বিবর্তিত হয়ে গেছে। এটি আর ছাগলদের দখলে নেই। ছাগলের মাংস, এমনটি আর বাজারে শােনা যায় না। শােনা যায়- খাসির মাংস, বকরির মাংস। রেঁস্তোরায় গিয়ে এখন আর কেউ বলে না, ‘আমি ছাগলের মাংস দিয়ে ভাত খাবো’। মানুষের একটি অংশ ছাগল শব্দটিকে নিজেদের করে নিয়েছে। শব্দটি শুনলে বা দেখলে, তারাই এখন প্রতিক্রিয়া দেখায়। তারা ভাবে, মনে হয় আমাকে বললাে! জবাব দিয়ে আসি!

 অপ্রয়ােজনীয় পিএইচডি হলাে সেগুলাে, যেগুলাে অর্জনের পেছনে কোনাে একাডেমিক কারণ নেই। আছে সামাজিক কারণ। বাংলাদেশে অনেকেই পিএইচডিকে এখন বিবেচনা করছেন সামাজিক মর্যাদা লাভের হাতিয়ার হিশেবে। কেউ হয়তাে এমন একটি চাকরি করছেন, যেখানে পিএইচডির কোনাে প্রয়ােজনই নেই। কিন্তু তিনি উতলা হয়েছেন পিএইচডি নেয়ার জন্যে। তার শখ হয়েছে, নামের আগে একটি ‘ডক্টর’ লাগানাের। বাঙালির এমন মনােভাব মূলত তার চারিত্রিক হীনম্মন্যতাকেই প্রকাশ করে। সামাজিক মর্যাদার সাথে যে ‘ডক্টর’ শব্দটির কোনাে সম্পর্কই নেই, এটি বুঝতে তারা নারাজ।

আমি উপরে ‘ডক্টর’ শব্দটির অর্থ বিশ্লেষণ করতে গিয়ে দেখিয়েছি যে, ডক্টরেট ডিগ্রি আসলেই কোনাে সামাজিক মুকুট নয়। এটি একটি প্রয়ােজনীয় একাডেমিক ডিগ্রি। কিন্তু ছাগলদের কাছে এটি সামাজিক মুকুট! তাদের দাবি, এটি না থাকলে নামটি একটু লম্বা করে বলা যায় না। এটি তাদের শিং! কিছু পরিস্থিতিতে তারা এ শিং দিয়ে নিজেদেরকে রক্ষা করে থাকে। বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ এটিকে শিং হিশেবে গ্রহণ করেছে। কোনাে বিষয়ে আবুল এবং ডক্টর আবুল, এ দুইজন একই কথা বললে, ডক্টর আবুলের কথাকে ছাগলসমাজ বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকে। বাঙালির কোনাে অনুষ্ঠানে মােহাম্মদ জব্বার ও ডক্টর মােহাম্মদ জব্বারের গুরুত্ব এক নয়। ডক্টর মােহাম্মদ জব্বারের দিকে মানুষ হাঁ করে তাকিয়ে থাকে।

কিছু জব্বার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের টেক্কা দেয়ার জন্য পিএইচডি নিচ্ছে। তারা বুঝাতে চাচ্ছে, আমরা তাদের চেয়ে কম কিসে? আমাদেরও ডক্টরেট আছে!

ইদানিং ওয়াজ মাহফিলের বক্তারাও এ যুদ্ধে শামিল হয়েছেন। তারাও দলবেঁধে পিএইচডি নেয়া শুরু করেছেন। তারা টের পেয়েছেন, ‘ডক্টর’ নামক মুকুটটি না থাকলে ফতােয়ার ওজন কমে যাচ্ছে, মানুষ গুরুত্ব দিচ্ছে না। অনেকে হাসাহাসি করছে। মানুষ ধরে নিয়েছে, মাওলানা আশরাফের চেয়ে ডক্টর মাওলানা আশরাফের কথার দাম বেশি! ডক্টর আশরাফ বানােয়াট হাদিস বললেও সেটি সহিহ! তিনি মিথ্যা গল্প বললেও তা সত্য!

পিএইচডি ডিগ্রির সঙ্গে কি আছে মানুষ হওয়ার সম্পর্ক? 

যার পিএইচডি আছে, তিনি একজন বিশেষজ্ঞ, এমন ধারণা ভিত্তিহীন। এ প্রসঙ্গে ফাইনম্যানকে মনে পড়ছে। ফাইনম্যান বলেছিলেন, পিএইচডির পরও কেউ গর্দভ থাকতে পারে।

কেউ যদি তার ভেতরের গাধাটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চায়, তাহলে পিএইচডির তাতে বাধা দেয়ার কোনাে সামর্থ্য নেই। সভ্যতা যাদের জ্ঞানের ওপর দাঁড়িয়ে আছে, তাদের অধিকাংশেরই পিএইচডি নেই। তবে এ কথা এ যুগে খুব একটা খাটবে না। এই মুহূর্তে পৃথিবীতে যারা বিশেষজ্ঞ আছেন, তাদের অনেকেরই পিএইচডি আছে, আবার অনেকেরই নেই। এটি একটি কাকতাল মাত্র। তবে বাংলাদেশে যাদের পিএইচডি আছে, তাদের নব্বই ভাগই যে বিশেষজ্ঞ নন, সেটি চারদিকে তাকালেই টের পাওয়া যায়।

আর পিএইচডির কাজ কাউকে বিশেষজ্ঞ করে তােলা নয়। বিশেষজ্ঞ হওয়াটা এখানে ঐচ্ছিক। পিএইচডি এখন গবেষণা করার একটি প্রশিক্ষণ কোর্স মাত্র। এটি একজন ছাত্রকে প্রশিক্ষণ দেয়, কীভাবে কোনাে বিষয়ে গবেষণা করতে হবে, কীভাবে অন্যের করা কাজকে ঘেঁটে দেখতে হবে, কীভাবে কোনাে বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ জ্ঞান সৃষ্টি করতে হবে। ভালাে বিশ্ববিদ্যালয়গুলােতে আন্ডারগ্রাড এবং মাস্টার্স কোর্সেও এ প্রশিক্ষণ কিছুটা দেয়া হয়। এ প্রক্রিয়ায় ছাত্রটির কোনাে বিষয়ে মৌলিক জ্ঞান সৃষ্টির একটি সম্ভাবনা তৈরি হয়। গবেষনার বিষয়বস্তু ভালাে হলে, পিএইচডি থিসিসে কিছু জ্ঞান উৎপন্ন হয়।

বিশেষজ্ঞের সাথে মৌলিক জ্ঞান সৃষ্টির কোনাে আহামরি সম্পর্ক নেই

যিনি কোনাে জ্ঞান সৃষ্টি করেননি, তিনিও পড়াশােনা  ও অভিজ্ঞতা দ্বারা কোনাে বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হতে পারেন। এ জন্য পিএইচডি থাকা খুব জরুরি নয়। তবে যিনি যে-বিষয়ে গবেষণা করেন, সে-বিষয়ে তার বিশেষজ্ঞ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি, এটি মাথায় রাখতে হবে। । কিন্তু বাঙালি সমাজ ধরে নিয়েছে, যার পিএচডি আছে তিনি মহাজ্ঞানী। আর যার পিএইচডি নেই তিনি কিছুই জানেন না। ছাগলরা এ সুযােগটিই নিয়েছে। তারা ভুয়া পিএইচডির ঘাড়ে সওয়ার হয়ে প্রকৃত পিএইচডিধারীদের চরিত্রে অভিনয় করছে।

সমাজের মানুষ এ মনোভাব না পাল্টালে, পিএইচডির সামাজিক ‘মুকুট’ বেঁচে থাকবে, এবং ছাগলদের মাথায় এ মুকুট বিরাজ করতে থাকবে। পিএইচডি নেবেন শুধু তারা, যাদের পিএইচডি দরকার। যারা গবেষণা করেন, গবেষণা খাতে ক্যারিয়ার গড়বেন, অন্যদের গবেষণা শেখাবেন, অথবা যাদের আত্মবিশ্বাস আছে যে, পিএইচডি থিসিসে তারা গুরুত্বপূর্ণ জ্ঞান উৎপাদন করতে পারবেন, কেবল তারাই যেন পিএইচডি ডিগ্রি নেন। এতে বাঁচবে মানুষের জীবনের অনেক মূল্যবান সময়। এ সময় তারা ব্যয় করবে পারিবারিক ও ব্যক্তিগত সুখের পেছনে।

তথ্যসূত্র: আধুনিক গরুর রচনাসমগ্র

আরও পড়ুন- করপোরেট কমিউনিকেশন কী? কেন শেখা প্রয়োজন?

জনপ্রিয় প্রবন্ধের বইগুলো দেখুন  

 

Rokomari Editor

Rokomari Editor

Rokomari is one of the leading E-commerce book sites in bangladesh

Leave a Comment

You May Also Like This Article

Rokomari-blog-Logo.png
Join our mailing list and get the latest updates
Loading