এই লেখাটি ছোটদের জন্যে – ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল

Dr. Jafar Iqbal

১.

বড়রা এই লেখাটি পড়তে পারবেন না তা নয়, কিন্তু আমার ধারণা বড় মানুষেরা যাদের ছেলেমেয়েরা স্কুল-কলেজে পড়ে তারা এই লেখাটি পড়ে একটু বিরক্ত হতে পারেন।

কীভাবে কীভাবে জানি আমাদের দেশের লেখাপড়াটা হয়ে গেছে পরীক্ষানির্ভর। এই দেশে এখন লেখাপড়ার সাথে শেখার কোনো সম্পর্ক নেই, পরীক্ষায় নম্বর পাওয়ার বিশাল একটা সম্পর্ক। বাচ্চারা স্কুল-কলেজে কিছু শিখল কি না– সেটা নিয়ে বাবামায়ের কোনো মাথাব্যথা নেই, পরীক্ষায় ভালো নম্বর পেল কি না কিংবা জিপিএ-ফাইভ পেল কি না– সেটা নিয়ে তাদের ঘুম নেই।

পরীক্ষায় বেশি নম্বর পাওয়াটা এমন একটা জায়গায় পৌঁছে গেছে যে জন্যে মা-বাবারা রাত জেগে প্রশ্ন ফাঁস হল কি না সেটি ফেসবুকে খোঁজাখুজি করতে থাকেন। কোথাও যদি পেয়ে যান তাহলে তার সমাধান করিয়ে ছেলেমেয়েদের পিছনে লেগে থাকেন– সেটা মুখস্থ করানোর জন্যে। পরীক্ষার হলে গিয়ে পরীক্ষার ঠিক আগে আগে বের হওয়া এমসিকিউ প্রশ্নগুলো নিজেদের স্মার্টফোনে নিয়ে এসে সেগুলো তাদের ছেলেমেয়েদের শেখাতে থাকেন।

মুহম্মদ জাফর ইকবাল-এর অলটাইম বেস্টসেলার ১০ টি বই

এখানেই শেষ হয় না; এত কিছুর পরেও যদি পরীক্ষার ফলাফল ভালো না হয় তাদের এমন ভাষায় গালাগাল আর অপমান করেন যে বাচ্চাগুলো গলায় দড়ি দেওয়ার কথা চিন্তা করে। আমাদের দেশে কীভাবে কীভাবে জানি এ রকম একটা ‘অভিভাবক প্রজন্ম’ তৈরি হয়েছে যারা সম্ভবত এই দেশের লেখাপড়ার জন্যে সবচেয়ে বড় বাধা! কাজেই এ রকম কোনো একজন অভিভাবক যদি এই লেখাটি পড়া শুরু করছেন তাহলে তাকে অনুরোধ করব, তিনি যেন শুধু শুধু আমার এই লেখাটি পড়ে সকালবেলাতেই তাঁর মেজাজটুকু খারাপ না করেন।

তবে পড়া বন্ধ করার আগে সিঙ্গাপুরের একটা স্কুলের প্রিন্সিপালের অভিভাবকদের কাছে লেখা একটা চিঠি পড়ার জন্যে অনুরোধ করছি। চিঠিটা বাংলায় অনুবাদ করলে হবে এ রকম:

প্রিয় অভিভাবকেরা,

আপনাদের ছেলেমেয়েদের পরীক্ষা কয়েক দিনের মাঝেই শুরু হবে। আমি জানি আপনাদের ছেলেমেয়েরা যেন পরীক্ষা ভালো করে সে জন্যে আপনারা নিশ্চয়ই খুব আশা করে আছেন।

কিন্তু একটা জিনিস মনে রাখবেন, ছাত্রছাত্রীদের ভেতরে যারা পরীক্ষা দিতে বসবে তাদের মাঝে নিশ্চয়ই একজন শিল্পী আছে যার গণিত শেখার কোনো দরকার নেই।

একজন নিশ্চয়ই ভবিষ্যৎ উদ্যোক্তা আছে যার ইতিহাস কিংবা ইংরেজি সাহিত্যের প্রয়োজন নেই।

একজন সঙ্গীতশিল্পী আছে যে রসায়নে কত নম্বর পেয়েছে তাতে কিছু আসে যায় না।

একজন খেলোয়াড় আছে তার শারীরিক দক্ষতা পদার্থ বিজ্ঞান থেকে বেশি জরুরি, উদাহরণ দেওয়ার জন্যে স্কুলিংয়ের কথা বলতে পারি।

যদি আপনার ছেলে বা মেয়ে পরীক্ষায় খুব ভালো নম্বর পায় সেটা হবে খুবই চমৎকার। কিন্তু যদি না পায় তাহলে প্লিজ তাদের নিজেদের উপর বিশ্বাস কিংবা সম্মানটুকু কেড়ে নেবেন না।

তাদের বলবেন, এটা নিয়ে যেন মাথা না ঘামায়, এটা তো একটা পরীক্ষা ছাড়া আর কিছু নয়। তাদের জীবনে আরও অনেক বড় কিছুর জন্যে প্রস্তুত করা হচ্ছে। তাদের বলুন, পরীক্ষায় তারা যত নম্বরই পাক, আপনি সবসময় তাদের ভালোবাসেন এবং কখনও পরীক্ষার নম্বর দিয়ে তাদের বিচার করবেন না।

প্লিজ, এই কাজটা করুন। যখন এটা করবেন দেখবেন আপনার সন্তান একদিন পৃথিবীটাকে জয় করবে। একটা পরীক্ষা কিংবা একটা পরীক্ষায় কম নম্বর কখনও তাদের স্বপ্ন কিংবা মেধা কেড়ে নিতে পারবে না।

আরেকটা কথা। প্লিজ, মনে রাখবেন, শুধু ডাক্তার আর ইঞ্জিনিয়াররাই এই পৃথিবীর একমাত্র সুখী মানুষ নয়।

অনেক শুভেচ্ছার সাথে–

প্রিন্সিপ্যাল

(চিঠিটাতে স্কুলিং নামে একটা ছেলের কথা বলা হয়েছে, এই বাচ্চা ছেলেটি অলিম্পিকে সাঁতারে সোনার মেডেল পেয়েছিল)

সিঙ্গাপুরের স্কুলের এই প্রিন্সিপ্যালের চিঠিটা আসলে শুধু তার দেশের ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের জন্যে নয়, আমাদের দেশের অভিভাবকদের জন্যেও সত্যি।
আমরা ভুলে যাই কিংবা হয়তো জানি না যে, একজন শিশুর অনেক রকম বুদ্ধিমত্তা থাকতে পারে এবং তার মাঝে আমরা শুধু লেখাপড়ার বুদ্ধিমত্তাটাই যাচাই করি। এই লেখাপাড়ার বুদ্ধিমত্তা ছাড়াও তার অন্য বুদ্ধিমত্তা দিয়েও যে একটা ছেলে বা মেয়ে অনেক বড় হতে পারে– সেটা আমাদের বুঝতে হবে।
আমি অনেক দিন থেকে ছেলেমেয়েদের পড়িয়ে আসছি; যতই দিন যাচ্ছে ততই আমার কাছে স্পষ্ট হচ্ছে, পরীক্ষার ফলের সাথে একজনের জীবনের সাফল্য-ব্যর্থতার কোনো সম্পর্ক নেই। আমার দেখা যে ছেলেটি বা মেয়েটি এই সমাজ দেশ কিংবা পৃথিবীকে সবচেয়ে বেশি দিয়েছে সে পরীক্ষায় সবচেয়ে বেশি নম্বর পেয়েছে তা কিন্তু সত্যি নয়।
আরো দেখুনঃ  ইংরেজীতে অনুবাদ করা হুমায়ূন আহমেদের যে ৭ টি বই আবার পড়তে পারেন
২.
আইনস্টাইন অনেক সুন্দর সুন্দর কথা বলেছেন, তার কথাগুলোর মাঝে যে কথাটা আমার সবচেয়ে প্রিয় সেটি হচ্ছে:
“কল্পনা করার শক্তি জ্ঞান থেকেও অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।”
আইনস্টাইন পৃথিবীর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী ছিলেন। জ্ঞানের গুরুত্বটুকু যদি কেউ বুঝতে পারে সেটি বোঝার কথা তাঁর মতো একজন বিজ্ঞানীর। কিন্তু এই মানুষটি কিন্তু জ্ঞান থেকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন কল্পনাশক্তিকে। কারণটা কী?
সেটি বোঝার জন্যে আমাদের রকেট সায়েন্টিস্ট হতে হবে না, একটুখানি চিন্তা করলেই বোঝা যায়। আমরা যেটাকে জ্ঞান বলি সেটা আমরা চেষ্টাচরিত্র করে পেয়ে যেতে পারি। যদি আমরা কিছু একটা না জানি, খুঁজে পেতে তার কিছু বই এনে সেগুলো ঘাঁটাঘাটি করে, জার্নাল পেপার পড়ে, অন্যদের সাথে কথা বলে আমরা সেগুলো জেনে যেতে পারি। সোজা কথায়, জ্ঞান অর্জন করতে পারি, সেটা অর্জন করতে চাই কি না কিংবা তার জন্যে পরিশ্রম করতে রাজি আছি কি না– সেটা হচ্ছে একমাত্র প্রশ্ন।
কিন্তু যদি আমাদের কল্পনা শক্তি না থাকে তাহলে কি আমরা চেষ্টাচরিত্র করে, খাটাখাটুনি করে সেই কল্পনাশক্তি অর্জন করতে পারব?
পারব না। শত মাথা কুটলেও আমরা কল্পনাশক্তি বাড়াতে পারব না। এটা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই, কারণ যখন একটা শিশু জন্ম নেয় তার ভেতরে অন্য সব কিছুর সাথে প্রচুর পরিমাণ কল্পনাশক্তি থাকে।
আমাদের কাজ খুব সহজ; সেই কল্পনাশক্তিটুকুকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। আর কিছু নয়। আমরা মোটেও সেটা করি না। শুধু যে করি না তা নয় সেটাকে ‘যত্ন’ করে নষ্ট করি।
আমি লিখে দিতে পারি, এই দেশের অনেক অভিভাবক মনে করেন যে, ভালো লেখাপড়া মানে হচ্ছে ভালো মুখস্থ করা। সবাই নিশ্চয়ই এটা লক্ষ্য করেছে যে, অনেক ছেলেমেয়েকে বই নিয়ে পড়তে বসার কথা বললে তার চোখ বন্ধ করে মুখস্থ করা শুরু করে। আমি নিজের চোখে পত্রিকায় একটা স্কুলের বিজ্ঞাপন দেখেছি যেখানে বড় বড় করে লেখা আছে: “এখানে মুখস্থ করানোর সুবন্দোবস্ত আছে!”
আমার মনে হয় আমি যদি দেখতাম সেখানে লেখা আছে: “এখানে মাস্তানি শেখার সুবন্দোবস্ত আছে,” তা হলেও আমি কম আতঙ্কিত হতাম।
যে কেউ ইচ্ছে করলে আমার কথাটা পরীক্ষা করে দেখতে পারেন। যে বাচ্চা স্কুলে যেতে শুরু করেনি, যাকে এখনও লেখাপড়া শুরু করানো হয়নি তাকে যে কোনো বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করলে নিজের মতো করে উত্তর দিয়ে দেবে। একটু চেষ্টা করলেই তার ভেতর থেকে কাল্পনিক বিষয় বের করে নিয়ে আসা যাবে।
ছোট একটা কাপড়ের পুতুলকে ‘বউ’ হিসেবে কল্পনা করে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাটিয়ে দেবে। এক টুকরো লাঠিকে একটা ‘গাড়ি’ হিসেবে কল্পনা করে ছোট শিশু সারা বাড়ি ছুটে বেড়াবে।
কিন্তু সেই শিশুটি যখন ভালো স্কুলে লেখাপড়া করবে, অভিভাবকেরা উপদেশ দিবে প্রাইভেট টিউটর তাকে জটিল বিষয় শিখিয়ে দেবে, কোচিং সেন্টার মডেল পরীক্ষার পর মডেল পরীক্ষা নিয়ে তাকে প্রস্তুত করে দেবে, তখন আমরা আবিষ্কার করব সে যে জিনিসগুলো শিখেছে তার বাইরের একটা প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে না। বানিয়ে কিছু লিখতে পারে না, কল্পনা করতে পারে না। একটা আস্ত মানুষকে আমরা পুরোপুরি রোবট বানিয়ে ফেলি।
একজন শিশুর কল্পনাশক্তি বাঁচিয়ে রাখা অনেকটা তার মস্তিষ্ককে অক্ষত রাখার মতো। শিশুটি অনেক কিছু শিখেছে, কিন্তু মস্তিষ্কের সর্বনাশ করে ফেলেছে, তার কাছে আমরা খুব বেশি কিছু চাইতে পারব না। তার তুলনায় যে বিশেষ কিছু শেখেনি, কিন্তু মস্তিষ্কটা পুরোপুরি সজীব আছে, সৃষ্টিশীল আছে, তার কাছে আমরা অনেক কিছু আশা করতে পারি।
মনে আছে, একবার কোনো এক জায়গায় বেড়াতে গিয়েছি এবং একটা শিশু আমাকে দেখে ছুটে এসে আমার সাথে রাজ্যের গল্প জুড়ে দিয়েছে। আমি এক ধরনের মুগ্ধ বিস্ময় নিয়ে আবিষ্কার করলাম, এইটুকুন একটা শিশু, কিন্তু সে কত কিছু জানে এবং আরও জানার জন্যে আমার কাছে তার কত রকম প্রশ্ন; আমি উত্তর দিয়ে শেষ করতে পারি না।
কিছুক্ষন পর তার মায়ের সাথে দেখা হল। মা মুখ ভার করে আমার কাছে অভিযোগ করে বললেন, “আমার এই ছেলেটা মোটেও লেখাপড়া করতে চায় না, দিনরাত গল্পের বই পড়ে। আপনি প্লিজ তাকে একটু উপদেশ দিয়ে দেবেন যেন সে একটুখানি লেখাপড়া করে।”
আমি তার মাকে বললাম, “ক্লাস এইটে ওঠার আগে কোনো লেখাপড়া নেই। সে এখন যা করছে তাকে সেটাই করতে দিন, কারণ সে একেবারে ঠিক জিনিসটা করছে।”
তারপর ছেলেটিকে ফিসফিস করে বললাম, “তুমি তোমার স্কুলে গিয়ে তোমার সব বন্ধুবান্ধবকে আমার কথা বলবে যে, আমি বলেছি ক্লাস এইটের আগে কোনো লেখাপড়া নেই। এখন যা মন চাই তাই কর, গল্পের বই পড়, ছবি আঁক, ক্রিকেট খেল।”
আমার কথা শুনে মা বেচারির হার্টফেল করার অবস্থা! আমি জানি এই ছোট ছেলেটিকেও একসময় স্কুল, শিক্ষক, অভিভাবক, প্রাইভেট টিউটর আর কোচিং সেন্টার মিলে ‘সাইজ’ করে ফেলবে। তারপরেও আমি আশা করে থাকি, এই ছোট বাচ্চাগুলো হয়তো তাদের অসম্ভব প্রাণশক্তি, স্বপ্ন আর কল্পনার শক্তিতে টিকে থাকবে। তাদের কেউ কেউ হয়তো রোবট নয়, সত্যিকার মানুষ হয়ে বড় হবে।

মুহম্মদ জাফর ইকবাল এর সবগুলো বই দেখুন এই লিঙ্ক-এ

মস্তিষ্ককে বাঁচিয়ে রাখা বা কল্পনা করার ক্ষমতা ধরে রাখার একটা খুব সহজ উপায় আছে, সেটা হচ্ছে বই পড়া। সারা পৃথিবীই এখন খুব দুঃসময়ের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে, ইন্টারনেট ফেসবুক এইসব প্রযুক্তির কারণে আমাদের শিশুরা বইপড়ার জগৎ থেকে সরে আসতে শুরু করেছে। আগে পৃথিবীর সব শিশু মাথা গুঁজে বই পড়ত, তাদের চোখের সামনে থাকত ছোট একটি বই, কিন্তু তাদের মাথার ভেতরে উন্মুক্ত হত কল্পনার বিশাল একটা জগৎ!
এখন এই শিশুদের চোখের সামনে থাকে কম্পিউটার কিংবা ট্যাবের স্ক্রিন, সেখানে তারা দেখে ঝকঝকে ছবি, কিংবা ভিডিও কিংবা চোখধাঁধানো প্রাফিক্সের কিম্পউটার গেম। তাদের মাথার ভেতরেও থাকে সেই একই ছবি, একই ভিডিও কিংবা একই গ্রাফিক্স, কল্পনার বিশাল একটা জগৎ আর উন্মুক্ত হয় না। কী দুঃখের একটা ব্যাপার!
আমি জানি, আজ হোক কাল হোক পৃথিবীর সব বড় বড় জ্ঞানীগুণী মানুষ বলবেন, ছোট ছোট শিশুদের ইন্টারনেট কম্পিউটার গেম আর ফেসবুকের জগতে পুরোপুরি ছেড়ে দেওয়ার কাজটা একেবারে ঠিক হয়নি, তাদের আরও অনেক বেশি বই পড়তে দেওয়া উচিৎ ছিল!
বই মেলা আসছে। আমি সব অভিভাবককে বলব, শিশুর হাত ধরে তাকে বই মেলায় নিয়ে আসুন। তাকে কয়েকটা বই কিনে দিন। একটা ছোট শিশুকে যদি একটিবার বই পড়ার অভ্যাস করিয়ে দিতে পারেন তাহলে আপনি সারা জীবনের জন্যে নিশ্চিন্ত হয়ে যাবেন।
ছেলেমেয়ে মানুষ করার এত সহজ উপায় থাকতে আমরা কেন তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুর্ভাবনা করি?

________________________________________________________________________

মুহম্মদ জাফর ইকবাল (জন্মঃ ২৩ ডিসেম্বর ১৯৫২) হলেন একজন বাংলাদেশী লেখক, পদার্থবিদ ও শিক্ষাবিদ।তার পিতা মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ফয়জুর রহমান আহমদ এবং মা আয়েশা আখতার খাতুন। বাবা ফয়জুর রহমান আহমদের পুলিশের চাকরির সুবাদে তার ছোটবেলা কেটেছে বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায়। মুহম্মদ জাফর ইকবালের নাম আগে ছিল বাবুল। তাকে বাংলাদেশে বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী লেখা ও জনপ্রিয়করণের পথিকৃত হিসাবে গণ্য করা হয়। এছাড়াও তিনি একজন জনপ্রিয় শিশুসাহিত্যিক এবং কলাম-লেখক। মুহম্মদ জাফর ইকবালের লেখা বেশ কয়েকটি উপন্যাস চলচ্চিত্রে রূপায়িত হয়েছে।জাফর ইকবাল  ১৯৭২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৭৬ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যান। তাঁর বিষয় ছিল – ‘Parity violation in Hydrogen Atom. সেখানে পিএইচডি করার পর বিখ্যাত ক্যালটেক থেকে তার ডক্টরেট-উত্তর গবেষণা সম্পন্ন করেন। তিনি বর্তমানে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের একজন অধ্যাপক এবং তড়িৎ কৌশল বিভাগের প্রধান।বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড গড়ে তোলার পিছনে তাঁর অসামান্য অবদান রয়েছে। গণিত শিক্ষার উপর তিনি ও অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ বেশ কয়েকটি বই রচনা করেছেন। এর মাঝে ” নিউরনে অনুরণন” ও ” নিউরনে আবারো অনুরণন” বই দুটি গনিতে আগ্রহীদের কাছে খুব জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় ঔপন্যাসিক হুমায়ূন আহমেদ তার বড় ভাই এবং রম্য ম্যাগাজিন উন্মাদের সম্পাদক ও কার্টুনিস্ট, সাহিত্যিক আহসান হাবীব তার ছোট ভাই।

rokomari

rokomari

Rokomari.com is now one of the leading e-commerce organizations in Bangladesh. It is indeed the biggest online bookshop or bookstore in Bangladesh that helps you save time and money.

Leave a Comment

Rokomari-blog-Logo.png
Join our mailing list and get the latest updates
Loading